ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৮

আজকের পত্রিকা

বিধিমালার খসড়া প্রস্তুত
বাড়িতেই অর্ধেক সাজা ভোগ করতে পারবেন নারী কয়েদিরা
আরাফাত মুন্না:

এবার বড় ধরনের কোনো অপরাধে দণ্ডিত না হলে বাড়িতেই অর্ধেক সাজা ভোগ করতে পারবেন নারী কয়েদিরা। শর্ত সাপেক্ষে নারীদের এ সুবিধা দিতে এরই মধ্যে একটি বিধিমালার খসড়াও তৈরি করেছে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। মতামতের জন্য খসড়াটি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের পাশাপাশি পাঠানো হয়েছে আইন কমিশনেও। ২০০৬ সালে পাস হওয়া ‘কারাগারে আটক সাজাপ্রাপ্ত নারীদের বিশেষ সুবিধা আইন, ২০০৬’-এর আওতায় এ বিধিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। আইন কমিশন খসড়া বিধিমালায় ১০টি ত্রুটি চিহ্নত করে এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে মতামতও পাঠিয়েছে। 

‘কারাগারে আটক সাজাপ্রাপ্ত নারীদের বিশেষ সুবিধা বিধিমালা, ২০১৮’ নামে এই খসড়া বিধিমালায় দেখা গেছে, বিশেষ সুবিধায় মুক্তি পাওয়ার পর প্রথম দুই মাস ১৫ দিন অন্তর ওই কয়েদিকে পর্যবেক্ষণ করবেন সংশ্লিষ্ট প্রবেশন অফিসার। দুই মাস পর থেকে শর্ত পালন করে সাজার বাকি মেয়াদ বাড়িতে বা নির্দিষ্ট এলাকার মধ্যে থেকে পার করতে পারবে কয়েদি। মুক্তি পাওয়ার পর কোনো নারী চাইলে আবাসিক ঠিকানা পরিবর্তন করতে পারবে। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট প্রবেশন অফিসারকে নতুন ঠিকানার তথ্য জানাতে হবে। তবে বিশেষ সুবিধায় মুক্তি পাওয়া কয়েদি শর্ত পালন না করলে তার সুবিধা বাতিল করতে পারবে সরকার।

কোনো নারী কয়েদি মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত হলে, যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হলে, রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে দণ্ডিত হলে এবং বিস্ফোরক দ্রব্য আইন, অস্ত্র আইন ও মাদকদ্রব্যসংশ্লিষ্ট আইনের অধীনে সংঘটিত অপরাধের দায়ে দণ্ডিত কয়েদি এই বিশেষ সুবিধা পাবেন না বলেই খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে। খসড়া বিধিমালায় বলা হয়েছে, বিশেষ সুবিধায় মুক্তি পেতে নারী কয়েদিদের আবেদন করতে হবে। যারা সুবিধা পাওয়ার যোগ্য তাদের প্রত্যেকের জন্য বিশেষ সুবিধার আলাদা পরিকল্পনা প্রণয়ন করবেন প্রবেশন অফিসার। প্রত্যেক কারাগারে এক বা একাধিক প্রবেশন অফিসার নিয়োগ দেবে সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়। আবেদনকারী কয়েদির অতীত পারিবারিক ইতিহাস, বর্তমান মনোসামাজিক ও আবেগীয় অবস্থা, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা, কর্মোদ্দীপনা, কর্মদক্ষতা, প্রবণতা ইত্যাদি বিবেচনা করবেন প্রবেশন অফিসার। তিনি এসব পরিকল্পনা জেলা কমিটি বা জাতীয় কমিটির কাছে পাঠাবেন। খসড়া বিধিমালা অনুযায়ী, জাতীয় কমিটি বা জেলা কমিটি কয়েদির কাছ থেকে আবেদন ও প্রবেশন অফিসারের কাছ থেকে প্রতিবেদন পাওয়ার পর ৯টি বিষয় বিবেচনা করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ওই কয়েদির মুক্তির বিষয়ে সুপারিশ পাঠাবে। এ পর্যায়ে যেসব বিষয় বিবেচনা করা হবে তার মধ্যে রয়েছে কয়েদি শিশুসন্তানসহ কারাগারে অবস্থান করে কি না, শিশুসন্তান বাড়িতে অবস্থান করে কি না, স্বাস্থ্যগত অবস্থানসহ কয়েদি বিশেষ কোনো অসুস্থতার শিকার কি না, প্রতিবন্ধী কি না এবং বয়স, শিক্ষাগত যোগ্যতা, আর্থসামাজিক অবস্থা, মামলার ধরন, কারাদণ্ডের মেয়াদ ও রেয়াতসহ কারাভোগের মেয়াদ ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ গ্রহণের তথ্য।

জাতীয় বা জেলা কমিটির কাছ থেকে সুপারিশ পাওয়ার পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রশাসনিক আদেশ জারি করে তার অনুলিপি কারাগার কর্তৃপক্ষ ও প্রবেশন অফিসারের কাছে পাঠাবে। সংশ্লিষ্ট কয়েদি তখন প্রবেশন অফিসারের মাধ্যমে কারাগার কর্তৃপক্ষের কাছে মুচলেকা দাখিল করবে। খসড়া বিধিমালার ৩ ধারায় বলা হয়েছে, কারাগার কর্তৃপক্ষ মুচলেকা সংরক্ষণ করে প্রবেশন অফিসারের তত্ত্বাবধানে বিশেষ সুবিধার আওতায় কয়েদিকে শর্তাধীন মুক্তি বা নির্ধারিত বিশেষ সুবিধা দেবে। এ বিষয়ে আইন কমিশনের মুখ্য গবেষণা কর্মকর্তা ফউজুল আজিম বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কারাগারে আটক নারীরা বিশেষ সুবিধা পেয়ে থাকেন। প্রতিবেশী দেশ ভারত ও শ্রীলঙ্কায়ও নারীরা কারাগারে এ ধরনের সুবিধা পান। তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে এখনো বাংলাদেশের কারাগারগুলো নারী বন্দীদের জন্য পুরোপুরি নিরাপদ করা সম্ভব হয়নি। আইনকে আরও কার্যকর করতে এই ধরনের একটি বিধিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ অত্যন্ত প্রশংসনীয়। তবে এখানে থাকা ত্রুটিগুলোও দূর করা প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

খসড়ায় ১০ ত্রুটি : ‘কারাগারে আটক সাজাপ্রাপ্ত নারীদের বিশেষ সুবিধা বিধিমালা, ২০১৮’ এর খসড়ার বিষয়ে আইন কমিশনের দেওয়া মতামতে ১০টি ত্রুটি তুলে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখ যোগ্য ত্রুটিসমূহ হচ্ছে— এই বিধিমালায় বিশেষ সুবিধা ভোগ করার আবেদন সংক্রান্ত বিভিন্ন ফরম সংযুক্ত করা নেই। এই ফরমগুলো সংযুক্ত থাকা প্রয়োজন ছিল। বিধিতে আদালত, কয়েদি, কারাগারসহ বিভিন্ন বিষয়ের সংজ্ঞা প্রদান করা হয়েছে। এসব সংজ্ঞা মূল আইনেও রয়েছে। তাই একই বিষয় পুনরাবৃত্তি করা অপ্রয়োজনী মনে করেছে কমিশন। কমিশনের মতামতে বলা হয়েছে, বিধিতে বেশ কিছু শব্দ বাদ পড়ে যাওয়ায় কিছু বিষয় অস্পষ্ট হয়ে গেছে। যেমন খসড়া বিধিমালার ৩ নম্বর বিধিতে ধারা ৪ অনুসারে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত কয়েদিদের তালিকা তৈরি করার কথা উল্লেখ আছে। তবে কোন আইনের ধারা তা উল্লেখ নেই। প্রস্তাবিত বিধিতে মুক্তিপ্রাপ্ত নারী কয়েদিদের ক্ষেত্রগুলো সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ নেই। বিধিমালায় পর্যবেক্ষণের ক্ষেত্রগুলো উল্লেখ করা প্রয়োজন বলেও আইন কমিশন মনে করে।

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার



এই পাতার আরো খবর