ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

আজকের পত্রিকা

আমিনুল হক বাদশার মৃত্যুবার্ষিকী আজ
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রথম প্রেস সচিব, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, লন্ডন প্রবাসী প্রখ্যাত সাংবাদিক ও লেখক খন্দকার আমিনুল হক বাদশার দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১৫ সালের এই দিনে বাংলাদেশ সময় ভোর ৬টায় লন্ডনের অর্পিংটন হাসপাতালে তিনি মারা যান। পরে লন্ডন থেকে তার লাশ দেশে এনে গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়ায় দাফন করা হয়। মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বাদ  আসর মরহুমের ছোট ভাই অ্যাডভোকেট লালিম হকের কুষ্টিয়া শহরের কোর্ট স্টেশনসংলগ্ন বাড়িতে মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষে অ্যাডভোকেট লালিম হক সবাইকে এ অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে মরহুমের আত্মার শান্তি কামনার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। আমিনুল হক বাদশা ১৯৪৪ সালের ২৪ অক্টোবর কুষ্টিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। বাবা খন্দকার লুতফুল হক ও মা সকিনা বেগমের ১০ সন্তানের মধ্যে বাদশা ছিলেন দ্বিতীয়। তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইকবাল হলের সাধারণ সম্পাদক বাদশা সামরিক শাসক আইয়ুববিরোধী ছাত্র আন্দোলনে বিভিন্ন সময় কারাভোগ করেন।

 প্রাক-মুক্তিযুদ্ধকালে স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদের সদস্য বাদশা ছাত্রবন্দী হিসেবে কারাগারে থেকে স্নাতক পাস করেন। ১৯৭১ সালে তিনি মুজিবনগরে বাংলাদেশ মিশনের বহিঃপ্রচার বিভাগের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও সংবাদ পাঠক বাদশা বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্সের (বিএলএফ) সদস্য ছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ’৬৯ সালে আগরতলা মামলা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর বাদশা বঙ্গবন্ধুর প্রেস সচিব নিযুক্ত হন। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর ’৭৫ সালের শেষ দিকে সামরিক শাসনের কারণে তিনি লন্ডনে চলে যেতে বাধ্য হন। আমিনুল হক বাদশা ঢাকার ডেইলি ইনডিপেনডেন্ট, এটিএন বাংলা (ইউকে), লন্ডনের দৈনিক নতুন দিন, কলকাতার দৈনিক আজকালে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবের প্রবীণ সদস্য বাদশা ছায়ানটের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। প্রখ্যাত অভিনেতা মরহুম রাজু আহমেদ তার বড় ভাই। ছোট ভাই খন্দকার কামরুল হক শামীম বাংলাদেশ প্রতিদিনের বাণিজ্যিক উপদেষ্টা।



এই পাতার আরো খবর