ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৮

আজকের পত্রিকা

সুন্নতের পরিচয়
আল্লামা মাহমূদুল হাসান

অভিধানে সুন্নতের অর্থ করা হয়, উম্মতের প্রতি মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশিত কাজ, ধর্মকর্ম পদ্ধতি ও আচরণবিধি। তবে আক্ষরিক অর্থে সুন্নতের আরেকটি অর্থ হলো, আল্লাহর বিধান। সে মতে, সুন্নত কয়েক ধরনের। একটি আল্লাহর সুন্নত, অন্যটি রসুলের সুন্নত। এ দুই সুন্নত ছাড়া আরও একটি সুন্নত আছে, সাহাবিদের সুন্নত। রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমরা আমার ও খোলাফায়ে কিরামের সুন্নতকে মজবুতভাবে আঁকড়ে ধর এবং তার ওপর অটল থাকো।’ ওই হাদিসের অর্থ এই নয় যে, আমরা আল্লাহর সুন্নত (বিধান) বাদ দিয়ে শুধু রসুল (সা.) ও খোলাফায়ে কিরামের সুন্নত আঁকড়ে ধরব। হজরত আয়শা (রা.)-এর প্রসিদ্ধ একটি হাদিস আছে। সাদামাঠা ভাষায় হাদিসটি এরূপ। একবার সাহাবিরা আয়শাকে জিজ্ঞাসা করলেন, ‘আপনি রসুলুল্লাহর জীবন পদ্ধতি সম্পর্কে আমাদের কিছু বলুন।’ আয়শা অতি সংক্ষিপ্ত উত্তর দিলেন। উত্তরটি ছিল, ‘তোমরা কি কোরআন পড় না? কোরআনের বিষয়বস্তু সম্পর্কে তোমরা অবহিত নও? তার জীবন পদ্ধতি কোরআনেরই ছবি।’ (মুসনাদে আহমদ)।

সর্বসম্মতভাবে কোরআন হলো আল্লাহর প্রত্যক্ষ বিধান। আর সেই কোরআনের প্রতিচ্ছবি হলেন হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। আল কোরআনে এসেছে : ‘আল্লাহ নবীর জন্য যা নির্ধারণ করেছেন, তা পালনে কোনো দোষ নেই। যেসব নবী-রসুল অতীত হয়ে গেছেন, তাদের ক্ষেত্রেও এটাই ছিল আল্লাহর সুন্নত (বিধান)। আর আল্লাহর বিধান সুনির্ধারিত।’ (সূরা আহজাব, আয়াত ৩৮)। আল্লাহর সুন্নতের অর্থ হলো, আল্লাহর নিয়মকানুন, রীতিনীতি বা অমোঘ বিধান। তিনি নিয়ম করে দিয়েছেন আগুনে হাত দিলে পুড়ে যাবে, পানিতে হাত দিলে ভিজে যাবে। পৃথিবীর যেদিকেই তাকাই, দেখা যাবে সবকিছুই কোনো না কোনো নিয়মের অধীন। যুবক শিশু হতে পারে না, বৃদ্ধও হতে পারে না যুবক। দিন-রাত চাঁদ-সূর্যসহ ধরণির সৃষ্ট সবকিছু একই নিয়মে চলে, সেই নিয়ম আল্লাহর। আদি থেকে চলছে নিরবধি। সবকিছুই যেন নিজ নিজ কক্ষপথে ঘূর্ণায়মান। আল্লাহ বলেন, (ভাবার্থ) ‘আমি আদিকাল থেকে পৃথিবীর সবকিছুই একটা নিয়মের মাধ্যমে করি। এর বিপরীত কখনো হবে না।’ (সূরা বনি ইসরাইল, আয়াত ৭৭)। সেই নিয়মগুলো হচ্ছে আল্লাহর সুন্নত, রসুলের সুন্নত নয়। তবে রসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এসব নিয়মের পুরোপুরি অনুবর্তী ছিলেন। রসুলের সুন্নত আল্লাহর সুন্নতের সঙ্গে সাংঘর্ষিক নয়;  উভয়ের মধ্যে রয়েছে গভীর সম্পর্ক।

লেখক : খতিব, গুলশান সেন্ট্রাল জামে মসজিদ, ঢাকা।



এই পাতার আরো খবর