ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

আজকের পত্রিকা

প্রেসক্রিপশন
পাইলস এবং ‘লংগো’
অনলাইন ডেস্ক
প্রতীকী ছবি

পাইলসের চিকিৎসা নিয়ে বিভ্রান্তির শেষ নেই। এছাড়া অনেক রোগীই এ রোগকে অবহেলা করেন। অথচ প্রাথমিক অবস্থায় চিকিৎসা নিলে পাইলসের বিভিন্ন জটিলতা থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। 

বর্তমান প্রেক্ষাপটে পাইলস চিকিৎসার আধুনিক অপারেশনসূমহকে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। সাধারণত অ্যাডভান্সড স্টেজ অর্থাৎ থার্ড ডিগ্রি ও ফোর্থ ডিগ্রি পাইলসে অপারেশন প্রয়োজন হয়। 

পাইলসে জটিলতা দেখা দিলে ও অন্যান্য রোগ যেমন এনাল ফিসারের সঙ্গে পাইলস থাকলেও অপারেশনের প্রয়োজন হয়। এসব পাইলসের অধিকাংশ ক্ষেত্রে বর্তমানে এর আধুনিক যে অপারেশন, অর্থাৎ ‘লংগো অপারেশন’ তা করা সম্ভব। এ অপারেশনে বাইরে কাটা-ছেঁড়া না থাকায় অপারেশন পরবর্তী ব্যথা একেবারে হয় না বললেই চলে। অপারেশনের সময় রক্তপাত হয় না। 

পাইলস রোগীদের অপারেশনের ক্ষেত্রে আরও একটি ভয় হচ্ছে টয়লেট নিয়ে। পায়ুপথে অপারেশন হয়েছে, টয়লেট কীভাবে হবে এ ভয়ে অনেকে অস্থির থাকেন। লংগো অপারেশনের পরপরই রোগী স্বাভাবিকভাবে টয়লেট করতে পারেন। বরং অনেক বড় পাইলস হয়ে গেলে কিংবা পাইলসের সঙ্গে এনাল ফিসার থাকলে এ রোগীদের টয়লেট করতে খুব কষ্ট হয়। 

অপারেশনের মাধ্যমে এসব সমস্যা দূর হওয়ায় রোগী অপারেশনের পরই আরামে টয়লেট করতে পারেন। এ অপারেশনে বাইরে কাটা-ছেঁড়া না থাকায় দীর্ঘদিন বেদনাদায়ক ড্রেসিং করতে হয় না। ফলে রোগী যন্ত্রণাদায়ক ড্রেসিং থেকে মুক্ত থাকেন। একটি প্রশ্ন থাকে- অপারেশনের পর এ রোগ আবার দেখা দেবে কিনা? 

এ প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে ছোট একটি শব্দ ‘না’। সঠিক নিয়মে অপারেশন এবং অপারেশন পরবর্তী নিয়ম-কানুন  মানলে এ রোগ আর আসবে না। স্বাভাবিকভাবে  মল ত্যাগ করা যায়।

অধ্যাপক ডা. এস এম এ এরফান

জাপান-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হসপিটাল, ধানমন্ডি, ঢাকা। ফোন: ০১৮৬৫৫৫৫১১১

বিডি প্রতিদিন/১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮/আরাফাত



এই পাতার আরো খবর