ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৮

আজকের পত্রিকা

রিমান্ডের প্রথম দিন
মুখ খোলেনি জামায়াতের ২৮ নারী
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে আটক জামায়াতে ইসলামীর ২৮ নারী কর্মী রিমান্ডে থাকলেও গতকাল পর্যন্ত কেউ মুখ খোলেনি বলে পুলিশ জানিয়েছে। রিমান্ডের প্রথম দিনে তাদের কাছ থেকে কোনো প্রশ্নেরই উত্তর পাওয়া যায়নি। মামলার তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, আটকের সময় থেকেই এই নারীরা তথ্য গোপনের চেষ্টা করে আসছে। ফলে তাদের সঠিক পরিচয়সহ তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত কাগজপত্র যাচাই করা হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে দলে ভেড়ানোর টার্গেট করা কর্মীদের যে তালিকা পাওয়া গেছে তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, রিমান্ডের প্রথম দিনে জামায়াতের নারী কর্মীদের কাছ থেকে তেমন কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার মোহাম্মদপুরের  তাজমহল রোডের ১১/৭ নম্বর বাড়ির দ্বিতীয় তলার ফ্ল্যাট থেকে এই নারীদের আটক করে পুলিশ। পরে তাদের বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা করা হয়। ওই মামলায় সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হলে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। পুলিশ বলছে, গোপন বৈঠকে সরকার উত্খাত ও বড় নাশকতার পরিকল্পনা করছিল আটক জামায়াতের নারী কর্মীরা। দীর্ঘদিন থেকে তারা ওই বাসায় গোপন বৈঠকে মিলিত হচ্ছিলেন। আটক নারীরা সবাই উচ্চ শিক্ষিত। তাদের মধ্যে স্কুল-কলেজের শিক্ষক, ডাক্তার রয়েছেন। এ ছাড়া তাদের অনেকে দণ্ডপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্য।

জামায়াতের মুক্তি দাবি : পুলিশ জামায়াতের ২৮ মহিলাকে গ্রেফতার করার প্রতিবাদ এবং গ্রেফতারকৃতদের নিঃশর্তভাবে মুক্তির দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। দলটির কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির ও সাবেক এমপি অধ্যাপক মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে বলেছেন, পুরুষ বা মহিলা যেকোনো নাগরিকের সভা-সমাবেশ করার ও কথা বলার অধিকার আছে, যা সংবিধানে স্বীকৃত। কিন্তু জনগণের ভোট ছাড়াই নির্বাচিত বর্তমান কর্তৃত্ববাদী সরকার মানুষের এ অধিকার কেড়ে নিচ্ছে। জামায়াতে ইসলামীর কয়েকজন মহিলা কর্মী গত ২ ফেব্রুয়ারি একটি বাড়িতে বসে পবিত্র কোরআন ও হাদিসের আলোচনা করছিলেন। তাদের সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে।



এই পাতার আরো খবর