Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, রবিবার, ১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:১২ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১১:১৪
আজ থেকে প্রাণের মেলা
অনলাইন ডেস্ক
আজ থেকে প্রাণের মেলা

ভাষাশহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও একুশের চেতনায় ঋদ্ধ হয়ে আজ ১ ফেব্রুয়ারি শুরু হচ্ছে মাসব্যাপী অমর একুশে গ্রন্থমেলা, ২০১৭। বিকাল ৩টায় এর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মেলার মূল মঞ্চে একই সঙ্গে ‘সম্প্রীতির জন্য সাহিত্য’ শীর্ষক চার দিনের আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনেরও উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। সম্মানিত বিদেশি অতিথি থাকবেন চীনের প্রখ্যাত গবেষক ও রবীন্দ্র-অনুবাদক ড. ইউ চেন, অস্ট্রিয়ার মেনফ্রেড কোবো, পুয়ের্তোরিকোর লুস মারিয়া লোপেজ, ভারতের চিন্ময় গুহ প্রমুখ। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেবেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব বেগম আক্তারী মমতাজ। স্বাগত বক্তব্য দেবেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান। সভাপতিত্ব করবেন একাডেমির সভাপতি ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, ২০১৬ প্রদান করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর হাতে বাংলা একাডেমি প্রকাশিত মীর মশাররফ হোসেনের অমর সৃষ্টি ‘বিষাদ সিন্ধু’র অনুবাদ ‘ওসিন অব সরো’ এবং জার্মানি থেকে প্রকাশিত ‘হানড্রেড পোয়েমস অব বাংলাদেশ’ তুলে দেওয়া হবে। উদ্বোধন শেষে মেলাপ্রাঙ্গণ পরিদর্শন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

মেলার মূল মঞ্চে প্রতিদিন বিকাল ৪টায় অনুষ্ঠিত হবে সেমিনার ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। আরও থাকবে শিশু-কিশোর চিত্রাঙ্কন, সাধারণ জ্ঞান ও উপস্থিত বক্তৃতা এবং সংগীত প্রতিযোগিতা। প্রতিদিন বিকাল ৩টায় শুরু হয়ে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে মেলার কার্যক্রম। শুক্র ও শনিবার বেলা ১১টায় খোলা হবে মেলার দ্বার। আর ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা থেকে রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত চলবে মেলা। বাংলা একাডেমি প্রকাশিত বই ৩০% কমিশনে এবং মেলায় অংশগ্রহণকারী অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ২৫% কমিশনে বই বিক্রি করবে। এবারও শিশুকর্নার থাকছে মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে। এখানে নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা থাকবে। গ্রন্থমেলায় টিএসসি, দোয়েল চত্বর দিয়ে দুটি মূল প্রবেশপথ, বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে তিনটি পথ, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রবেশ ও বাহিরের আটটি পথ থাকবে। বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে ‘নতুন বইয়ের প্রদর্শনশালা’ করা হয়েছে। শারীরিক প্রতিবন্ধী ও বয়স্ক মানুষের চলাচলের জন্য থাকবে ২০টি হুইল চেয়ার। নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার জন্য মেলায় এলাকাজুড়ে আড়াইশ ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বিডি প্রতিদিন/০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭/এনায়েত করিম

আপনার মন্তব্য

up-arrow