Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : ১৭ মার্চ, ২০১৭ ১৭:৫২ অনলাইন ভার্সন
আপডেট :
রাবিতে বেড়েই চলেছে ছিনতাই
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
রাবিতে বেড়েই চলেছে ছিনতাই

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাম্প্রতিক সময়ে বেড়েই চলেছে ছিনতাইয়ের ঘটনা। একের পর এক ছিনতাইয়ের পরেও প্রশাসনের দৃশ্যত কোনো পদক্ষেপ না থাকায় হতাশ শিক্ষার্থীরা।

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে ছিনতাইয়ের শিকার হন আইন বিভাগের তাসমী তামান্না নামের এক শিক্ষার্থী।

তামান্না জানান, বাড়ি থেকে রাজশাহীতে আসতে রাত পৌনে ১২টা বেজে যায়। ক্যাম্পাসে প্রবেশের পর কিছু লোক আমাকে অনুসরণ করা শুরু করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে আসতেই একটা মোটরসাইকেলে করে ওখানকার তিনজন লোক আমার ট্রাভেল ব্যাগটি ছিনিয়ে নেয়। ওখানে কিছু টাকা, আইডি কার্ড, এটিএম কার্ড, জামাকাপড়সহ প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই ছিল।

এর আগে ১৩ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ইবলিশ চত্বরের রাস্তায় রিক্সা করে যাওয়ার সময় ব্যাগ ধরে টান দেয় মোটরসাইকেলে থাকা দুই ছিনতাইকারী। কিন্তু হাতের সঙ্গে প্যাঁচ লেগে যাওয়ায় ওই যাত্রায় রক্ষা পান তাসমী তামান্না।

একই তারিখ রাত ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বিনোদপুর এলাকায় ছিনতাই ও মারধরের শিকার হন ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের পলাশ ও সুজন নামের দুই শিক্ষার্থী। তাদের দাবি, নেশাগ্রস্ত অবস্থায় স্থানীয় যুবলীগের কার্যালয় থেকে কয়েকজন নেতাকর্মী বের হয়ে কোনো কারণ ছাড়াই তাদের বেধড়ক চড়-থাপ্পর ও কিল-ঘুষি দিতে থাকে।

এরপর তাদের উদ্ধার করতে আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী সেখানে গেলে তাদের কাছ থেকে মোবাইল কেড়ে নিয়ে দেশীয় অস্ত্র দেখিয়ে ধাওয়া করে যুবলীগের নেতাকর্মীরা।  

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে ছিনতাইয়ের শিকার হন ফিন্যান্স বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শহীদুল ইসলাম মিলন। এসময় তাকে ছুরিকাঘাত করে একটি মোবাইল ও টাকা ছিনিয়ে নেয় ছিনতাইকারীরা।  

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মুজিবুল হক আজাদ খান বলেন, ২৪ ঘণ্টা শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা দিতে হলে পাঁচ হাজার পুলিশ প্রয়োজন। এটা তো বাস্তবসম্মত না।


বিডি প্রতিদিন/১৭ মার্চ, ২০১৭/ফারজানা 

আপনার মন্তব্য

up-arrow