Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:৩৭ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২৪ এপ্রিল, ২০১৮ ০৩:২২
ক্যাম্পাসের মধ্যেই রুয়েট বাস চালককে কুপিয়ে হত্যা
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
ক্যাম্পাসের মধ্যেই রুয়েট বাস চালককে কুপিয়ে হত্যা
প্রতীকী ছবি

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রুয়েট) আবদুস সালাম (৪৫) নামের এক বাস চালককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার ১০টা ১৫ মিনিটের দিকে রুয়েটের শেখ হাসিনা হলের পাশে এঘটনা ঘটে।

মৃত সালাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারীর কোয়াটারে থাকতেন বলে জানা গেছে। তার বাড়ি নগরীর দেবাসিং পাড়ার ইসলামপুরে। তবে কারা আর কেন সালামকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে প্রাথমিকভাবে তা জানাতে পারেননি আইনশৃঙ্খলাবাহিনী।

নগীরর মতিহার থানার তদন্ত কর্মকর্তা মাহবুব আলম জানান, দুর্বৃত্তরা লাশের পেটে কুপিয়েছে। লাশের মাথায়ও আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে কারা জড়িত তা এখনো জানা যায়নি। তবে পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।

মতিহার থানার ওসি শাহাদাত হোসেন খান জানান, রুয়েটের মধ্যে বাস রেখে হেটে বাড়ি ফিরছিলেন। ওই সময় কয়েকজন দুর্বৃত্ত তার উপর হামলা চালিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যায়। তার আত্মচিৎকারে আশেপাশের লোকজন গিয়ে তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেয়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা তাকে ৮নং ওয়ার্ডে পাঠায়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন। নিহতের মাথায় ও শরীরে অসংখ্য ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সিকিউরিটি অফিসার জালাল জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের শেখ হাসিনা হলের পুকুর পাড়ে পাশ দিয়ে কর্মচারীর কোয়াটারের দিকে একটি রাস্তা গেছে। সেই পুকুর পাড়ের পাশে আমরা লাশ পড়ে থাকতে দেখতে পাই। সেখানে গিয়ে দেখি লাশটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ড্রাইভার সালামের। সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানানো হয়। পরে পুলিশ প্রসাশনকেও ঘটনাটি জানানো হয়।

নগরীর মতিহার থানার তদন্ত কর্মকর্তা মাহবুব আলম জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পুকুর পাড়ে  একটি লাশ পড়ে আছে- বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আমাদেরকে এমন একটি খবর দেয়া জানানো হয়। ৩০ মিনিট পারে রাত ১১টার দিকে আমরা সেখানে গিয়ে লাশটি রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। সেখান থেকে লাশটি তুলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (রামেক) নিয়ে আসা হয়েছে। লাশ হাসপাতালেই রয়েছে।

 

বিডি প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ সিফাত তাফসীর

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow