Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৬ অক্টোবর, ২০১৮ ১৮:১৩ অনলাইন ভার্সন
ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে ইবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত
ইবি প্রতিনিধি:
ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে ইবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বিভিন্ন খাতে ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে ২য় দিনের মত আন্দোলন অব্যহত রেখেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবনের সামনে মানববন্ধন করে। মানববন্ধনের আগে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন একাডেমিক ভবনের অভ্যান্তরে মিছিল করে বলে জানা গেছে।

এর আগে গত সোমবার থেকে বিভিন্ন খাতে ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে আন্দোলন শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা। মঙ্গলবার আন্দোলনের ২য় দিনে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে।

জানা যায়, ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি আবেদনের মূল্য বৃদ্ধি, গত শিক্ষাবর্ষ (২০১৭-১৮) থেকে ভর্তি ফি বৃদ্ধি, হল বাবদ ফি বৃদ্ধি, সেমিস্টার ফি বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন খাতে ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে গতকাল সোমবার মানববন্ধন করে শিক্ষার্থীরা। 

কর্মসূচির আলোকে ২য় দিন মঙ্গলবার বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত ফেস্টুন নিয়ে মিছিল করে শিক্ষার্থীরা। এসময় আন্দোলনকারীরা প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে মিছিল শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন একাডেমিক ভবন ঘুরে প্রশাসন ভবনের সামনে মানববন্ধন করে। মানববন্ধনে শিক্ষাথীরা অবিলম্বে বর্ধিত সকল ফি কমানোর জোর দাবি জানান। এসময় আন্দোলনকারীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত সময় বেধে দেন। এর মধ্যে বর্ধিত ফি না কমানো হলে আগামী ২৪ অক্টেবর থেকে অবস্থান কর্মসূচির ঘোষণা দেয় আন্দোলনকারীরা। 

এদিকে শিক্ষার্থীদের এ যৌক্তিক আন্দোলনে একাত্ত্বতা ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিনুর রহমান শাহিন বলেন, ‘আমরা সবসময় সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষে। শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, গত বছর ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে ভর্তি ফি প্রায় ৩ গুণ বৃদ্ধি করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এর প্রতিবাদে সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে টানা আন্দোলনে নামে বাম ছাত্র সংগঠনগুলো। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ তাদের আন্দোলনে একত্ত্বতা ঘোষণা করেনি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভর্তি ফি বৃদ্ধি করে। যেটি ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে কার্যকর হয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী জানান, ‘শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কল্যানেই অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সামঞ্জস্য রেখেই ফি বৃদ্ধি করা হয়েছে। ভর্তি ফি এক বছর আগে বাড়ানো হয়েছে এবং এটি সিন্ডিকেটে পাশ হয়েছে।’


বিডি প্রতিদিন/১৬ অক্টোবর ২০১৮/হিমেল

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow