Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৭ মে, ২০১৮ ২২:২৫ অনলাইন ভার্সন
রেলওয়েতে আসছে ১০ ইঞ্জিন
সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম
রেলওয়েতে আসছে ১০ ইঞ্জিন
প্রতীকী ছবি
bd-pratidin

লোকোমোটিভ ঠেকাতে বাংলাদেশ রেলওয়েতে আসছে ১০টি মিটারগেজ ইঞ্জিন। আগামী ২ বছরের মধ্যেই এ ইঞ্জিনগুলো সরবরাহ করা হবে। এডিবির অর্থায়নে আনা হচ্ছে এসব ইঞ্জিন। ১০টি ইঞ্জিনের দাম পড়েছে বাংলাদেশি টাকায় চুক্তি মূল্য ২৯৭ কোটি ৬৩ লাখ ৩০ হাজার ৫৬০ টাকা।
দীর্ঘদিন ধরেই বাংলাদেশ রেলওয়ে লোকোমোটিভ সংকটে ভুগছে। চলাচলরত অধিকাংশ ইঞ্জিনই হচ্ছে উত্তীর্ণ। তাছাড়া চলাচলরত মেয়াদ উত্তীর্ণ ইঞ্জিন দিয়ে ট্রেনগুলো চলছে নানাবিধ ঝুঁকির মধ্যে। প্রতিনিয়ত ইঞ্জিন বিকল ও লোকোলসসহ নানাবিধ ক্রটির কারণে ট্রেন চলাচলেও বিঘ্নিত হচ্ছে। এসব কারণে রেলওয়ের ভাবমুর্তি ক্ষুন্নসহ যাত্রীদের মধ্যে চলছে নানাবিধ অসন্তোষও।

বৃহস্পতিবার রেলপথ মন্ত্রী মো. মুজিবুল হক এমপির উপস্থিতিতেই রেলভবনে এসব চুক্তি স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশের পক্ষে স্বাক্ষর করেন অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মোঃ শাসসুজ্জামান এবং নির্মানকারী প্রতিষ্ঠান কোরিয়ার হুন্দই রোটেমের পরিচালক (গ্লোবাল রেল) কোয়াং কুন উন।

অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মোঃ শাসসুজ্জামান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, যেসব ইঞ্জিন আনার জন্য চুক্তি করা হয়েছে সেগুলো চলাচলরত ইঞ্জিনের চেয়ে অধিক উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ইঞ্জিন। যেসব ইঞ্জিন আসবে, সেগুলো দিয়ে এটা ট্রেনে আরো বেশী লোড নেয়া যাবে। যাত্রীদের সুবিধার জন্য দ্রুত সময়ের মধ্যে ইঞ্জিনগুলো দেশে আনা হবে। ১০টি উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন ইঞ্জিন আনতে চুক্তি সইও করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, সারা দেশে ২৭০ টি কোচ রেলবহরে চলছে। এছাড়া ২৫০ টি কোচ নির্মাণাধীন অবস্থায় আছে। ১৫০ টি কোচ কোরিয়ান সরকারের অর্থায়নে কেনার প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে। এ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. মুজিবুল হক এমপি ছাড়াও মন্ত্রনালয়ের সচিব মোঃ মোফাজ্জেল হোসেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক (ডিজি) প্রকৌশলী মোঃ আমজাদ হোসেন,অতিরিক্ত মহাপরিচালক (রোলিং স্টক) মোঃ শাসসুজ্জামানসহ রেলওয়ের উর্ধতন কর্মকর্তাসহ নির্মানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে চলন্ত ট্রেনে পাথর/ঢিল নিক্ষেপ বন্ধের উদ্দ্যেশ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে রেলওয়ে ফ্যান, মিডিয়া কর্মী, নিরাপত্তা কর্মী, এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে বৃহস্পতিবার রেলভবনে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোফাজ্জেল হোসেন।

এসময় বক্তারা বলেন, ২০ জেলায় অধিক পরিমানে ট্রেনে পাথর নিক্ষেপ করা হয়। এর মধ্যে পূর্বাঞ্চলে ৫ টি জেলা এবং পশ্চিমাঞ্চলে ১৫ টি জেলা রয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন রেলওয়ে পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি মোঃ আবুল কাশেমসহ রেলপথ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

বিডি-প্রতিদিন/ সালাহ উদ্দীন

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow