Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
প্রকাশ : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৫:৩৪

ফেসবুকে পরিচয়ে প্রেম-বিয়ে, অতঃপর প্রাণই গেল যুবকের

অনলাইন ডেস্ক

ফেসবুকে পরিচয়ে প্রেম-বিয়ে, অতঃপর প্রাণই গেল যুবকের
আশা আক্তার

এক বছর আগে ফেসবুকে পরিচয়ের সূত্র ধরে চার মাস আগে বিয়ে হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছেলে শামীমের সঙ্গে বগুড়ার মেয়ে আশা আক্তারের। শামীমকে বগুড়াতে স্থায়ী করার জন্য এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে একটি ইজিবাইকও কিনে দেন আশা আক্তার। কিন্তু বিয়ের পর আশা আক্তার জানতে পারেন, শামীম আগেও বিয়ে করেছেন এবং তার দুইটি বাচ্চা আছে। এরই মধ্যে শামীম আশা আক্তারকে না বলে চট্টগ্রাম চলে আসায় ক্ষোভ আরও বেড়ে যায়। এরপরই খুনের পরিকল্পনা করে আশা আক্তার। 

শামীম খুন হওয়ার পাঁচ দিনের মধ্যে আশা আক্তারকে বগুড়া থেকে গ্রেফতার করে চট্টগ্রাম নিয়ে এসে এমনই চাঞ্চল্যকার তথ্য জানিয়েছেন সিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার (প্রশাসন) কুসুম দেওয়ান।

বুধবার দামপাড়া পুলিশ লাইন্সে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, শামীম ফোনে আশা আক্তারকে চট্টগ্রাম চলে আসার জন্য বললে তিনি রাজি হয়ে যান। পরে শামীম গিয়ে আশা আক্তারকে নিয়ে আসেন এবং ভাড়া বাসায় উঠেন। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি শামীমের সঙ্গে প্রথম চট্টগ্রামে আসেন আশা আক্তার। এবং সেদিনই শামীমকে ঘুমের মধ্যে খুন করে বগুড়া পালিয়ে যান। হত্যাকাণ্ডে ব্যবহার করা ছুরিটি বগুড়া থেকে কিনে নিয়ে এসেছিলেন আশা আক্তার।’

সংবাদ সম্মেলনে সিএমপির উপ-কমিশনার (পশ্চিম) ফারুক উল হক, অতিরিক্ত উপ-কমিশনার কামরুল ইসলাম, সিনিয়র সহকারী কমিশনার (পাহাড়তলী জোন) পংকজ বড়ুয়া, পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সদীপ কুমার দাশ উপস্থিত ছিলেন।

বিডি-প্রতিদিন/২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯/মাহবুব


আপনার মন্তব্য