Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২১ জুন, ২০১৬ ১৯:৪৪
এসপির স্ত্রী হত্যায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে জেএমবি সদস্য ফুয়াদ
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
এসপির স্ত্রী হত্যায় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে জেএমবি সদস্য ফুয়াদ
ফাইল ছবি

এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার বিষয়ে গুরুত্বর্পূণ তথ্য দিয়েছেন জেএমবি সদস্য বুলবুল আহমেদ সরকার ওরফে ফুয়াদ ওরফে আপেল। পিআইপি’র নেয়ার পাঁচ দিনের রিমান্ডে ফুয়াদ জঙ্গি বিরোধী অংশ নেয়া পুলিশ সদস্যদের হত্যার আহ্বানে দেয়া চিরকুটসহ বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। তার দেয়া তথ্যগুলো যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। 

পিবিআই চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বশির আহম্মেদ বলেন, ‘জেএমবি সদস্য ফুয়াদের কাছ থেকে কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। এ সব তথ্য সিএমপি কমিশনারকে জানানো হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলতে পারবো না।’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘জেএমবি সদস্য ফুয়াদের কাছ থেকে বেশ কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তথ্যগুলো মামলার তদন্ত কর্মকর্তাদের দেয়া দেয়া হয়েছে।’

জানা যায়, গত বছরের ৫ অক্টোবর নগরীর খোয়াজনগর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ফুয়াদসহ পাঁচ জেএমবি সদস্যকে গ্রেফতার করেছিল এসপি বাবুল আক্তারের নেতৃত্বে গোয়েন্দা দল। এদের মধ্যে জেএমবির চট্টগ্রাম অঞ্চলের সামরিক প্রধান মো. জাবেদ ওরফে জায়েদকে নিয়ে আরেকটি অভিযানে গেলে গ্রেনেড বিস্ফোরণে তিনি মারা যায়। ওই অভিযানে অংশ নেয়া পুলিশ কর্মকর্তাদের হত্যার জন্য জেএমবি শীর্ষ নেতাদের একটি চিরকুট দেয় ফুয়াদ। গাইবান্ধার জেএমবি আস্তানা থেকে ফুয়াদের লেখা ওই চিরকুটটি উদ্ধার করে পুলিশ। বিভিন্ন হাত ঘুরে চিরকুটটি পৌঁছেছে পিবিআই’র কাছে। সম্প্রতি এ বিষয়টি ফাঁস হয়ে গেলে তদন্ত নামে পিবিআই। মুলত এ বিষয়টি তদন্ত করতেই ফুয়াদকে রিমান্ডে নিয়েছে পিবিআই। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ধারণা ফুয়াদের ওই চিরকুটের সাথে মিতু হত্যাকাণ্ডের সম্পৃক্ততা রয়েছে। তাই ওই চিরকুটের বিষয়টি তদন্ত করতে ফুয়াদকে অন্য একটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পিবিআই।

রিমান্ড শেষে কারাগারে ফুয়াদ

জেএমবি সদস্য বুলবুল আহমেদ সরকার ওরফে ফুয়াদ ওরফে আপেলকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার মহানগর হাকিম আব্দুল কাদেরের আদালতে হাজির করা হলে আদালত ফুয়াদকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। গত বছরের ২৫ মে বাকলিয়া থানার কর্ণফুলী নদীর সৎসঙ্গ আশ্রম ঘাটে অজ্ঞাত একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। ঘটনায় ফুয়াদ ওরফে আপেল ওরফে মেহেদী ওরফে রকিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে ১৪ জুন রিমান্ড চান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের পরিদর্শক মো. এহেতাশামুল ইসলাম। পরে আদালত তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। ওই হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে মিতু হত্যা মামলায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় ফুয়াদকে।

চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপকমিশনার (প্রসিকিউশন) নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্ত্তী জানান, কর্ণফুলী নদীর সৎসঙ্গ আশ্রম ঘাটে অজ্ঞাত একজনের লাশ উদ্ধার মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গত ১৪ জুন আদালতের নির্দেশে ফুয়াদকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেয় পিবিআই। রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার তাকে আদালতে হাজির করা হলে বিচারক কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জুন নগরীর জিইসি’র মোড় এলাকায় ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুবৃর্ত্তদের হাতে খুন এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনায় বাবুল আক্তার বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনার ক্লু উদঘাটন এবং আসামিদের গ্রেফতারের জন্য কাজ শুরু করে ডিবি, র‍্যাব, সিআইডি, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ও কাউন্টার টেররিজম ইউনিট (সিটিআই) আইন-শৃঙ্খলা বাহিন অন্যান্য সংস্থাগুলো। 


বিডি -প্রতিদিন/ ২১ জুন, ২০১৬/ আফরোজ




আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow