Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ, ২০১৭

প্রকাশ : ১৪ জুলাই, ২০১৬ ১৩:০৯
আপডেট :
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইউজিসির তদন্ত দল
অনলাইন ডেস্ক
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইউজিসির তদন্ত দল

জঙ্গি সম্পৃক্ততা বিষয়ে তদন্ত করতে বৃহস্পতিবার দুপুরে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে গেছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত দল।

ইউজিসির অতিরিক্ত পরিচালক (জনসংযোগ) মো. ওমর ফারুখ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীদের জঙ্গি কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ার একের পর এক তথ্য আসার প্রেক্ষাপটে ইউজিসির তদন্ত দল সেখানে গেছে বলে জানা গেছে। তদন্ত দলের প্রধান হিসেবে রয়েছেন ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজা বেগম।

নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. শাহজাহানকে এ বিষয়ে আগেই চিঠি দিয়ে প্রয়োজনীয় নথিপত্র প্রস্তুত রাখতে এবং সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের ক্যাম্পাসে উপস্থিত থাকতে বলা হয় বলে জানা গেছে।

এদিকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, একটি গোয়েন্দা সংস্থার দেওয়া প্রাথমিক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়টির ৪০ জন ছাত্রের তথ্য চেয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসি। ইউজিসির মাধ্যমে শিক্ষা মন্ত্রণালয় তালিকাটি পাঠায়। এসব শিক্ষার্থীর বিষয়ে বিশদ তথ্য দিতে বলা হয়। এই ৪০ ছাত্র ক্লাসে প্রায়ই অনিয়মিত থাকেন ও দুই বছর ধরে কম-বেশি ক্যাম্পাসে অনুপস্থিত। এদের মধ্যে ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (ইইই) বিভাগের শিক্ষার্থী ১১ জন। এ ছাড়া বিবিএ, ফিন্যান্স ও প্রকৌশলসহ আরো কয়েকটি বিভাগের শিক্ষার্থীও রয়েছেন। সূত্র জানায়, ক্যাম্পাসে সরেজমিন তদন্তকালে ওই ৪০ শিক্ষার্থীর বিষয়ে জোর দেওয়া হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, এখন পর্যন্ত গ্রেফতার হওয়া জঙ্গিদের মধ্যে স্কলাসটিকা স্কুলের ১৪তম ব্যাচের এবং নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিবিএ ও ইইই বিভাগের ছাত্র বেশি। এ কারণে এই দুই প্রতিষ্ঠানের ওপর তদন্তে প্রাথমিকভাবে জোর দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এছাড়া অভিযোগ উঠেছে, যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযম ও মতিউর রহমান নিজামীর ছেলেরা নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। গোলাম আযমের বড় ছেলে আবদুল্লাহ হিল আমান আল আযমী নর্থ সাউথের খণ্ডকালীন শিক্ষক ও অপর ছেলে সাদমান আযমী ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক। আর মতিউর রহমান নিজামীর ছেলে নাদিম তালহা নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে কাজ করেছেন। বর্তমানে তিনি পিএইচডি করতে দেশের বাইরে আছেন।

তদন্ত দল এই তিনজনের বিষয়েও বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান জানতে চাইবেন বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, ঈদুল ফিতরের দিন শোলাকিয়ায় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় নিহত আবীর এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। গত ১ জুলাই গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলায় দুই শিক্ষার্থীর সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়। এ ছাড়া পুলিশের তৈরি করা তালিকায় নিখোঁজ ১০ ছাত্রের মধ্যে রয়েছে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীও।

বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow