Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০১:৪৭
ভুয়া কাবিননামা দেখিয়ে লিভ-টুগেদার, জবি ছাত্র গ্রেফতার
অনলাইন ডেস্ক
ভুয়া কাবিননামা দেখিয়ে লিভ-টুগেদার, জবি ছাত্র গ্রেফতার

বিয়ের ভুয়া কাগজপত্র দেখিয়ে সহপাঠীর সঙ্গে প্রায় তিন বছর বসবাস করার পর ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের এক ছাত্র। অভিযোগকারী ছাত্রী গ্রেফতার আতাউল্লাহ হাসানেরই সহপাঠী।

রাজধানীর কদমতলী থানার ওসি কাজী ওয়াজেদ আলী বলেন, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কদমতলী থানায় আতাউল্লাহর নামে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন ওই ছাত্রী। অভিযোগের ভিত্তিতে ধর্ষণ মামলায় আতাউল্লাহকে আটক করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভিযোগে জানা যায়, ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষে সাংবাদিকতা বিভাগে একসঙ্গে ভর্তি হওয়ার পর তারা প্রেমের সম্পর্কে জড়ান। পরে বিয়ে করে ২০১২ সালের অাগস্ট থেকে জুরাইনের একটি বাসায় তারা দম্পতি হিসেবে বসবাস শরু করেন। তবে সম্প্রতি কাবিননামাটি ভুয়া বলে জানতে পারেন তিনি।

এর আগে সোমবার বিকালে সম্পর্ক অস্বীকার ও শারীরিক-মানসিক নির্যাতনের অভিযোগে ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কার্যালয়ে আতাউল্লাহর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন। একইসঙ্গে কোতয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

অভিযোগের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কার্যালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে চার ঘণ্টার সালিশ বৈঠক শেষে প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মদ, সহকারী প্রক্টর মোস্তফা কামাল ও কোতয়ালি খানার এসি শাহেন শাহ কদমতলী থানা পুলিশের কাছে আতাউল্লাহকে সোপর্দ করেন।

ওই ছাত্রীর দাবি, স্নাতক শেষ করার পর স্নাতকোত্তর পর্বের ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিলে সম্পর্কচ্ছেদ করবেন বলে আতাউল্লাহ তাকে হুমকি দেয়। ফলে তিনি মাস্টার্সে ভর্তি হননি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর কার্যালয়ে দেওয়া অভিযোগপত্রে ওই ছাত্রী লেখেন, গোপনে বিয়ে করলেও পরে তার সাথে সম্পর্ক অস্বীকার করেন আতাউল্লাহ। স্ত্রীর অধিকার ফিরে পেতে সোমবার তার সাথে দেখা করতে আসলে আতাউল্লাহ তাকে লাথি দিয়ে বাস থেকে ফেলে দেন। এসময় তাকে মারধরের পাশাপাশি আতাউল্লাহ তার কাপড়ও ছিড়ে ফেলেন বলে অভিযোগ ওই ছাত্রীর।

এসব অভিযোগের প্রেক্ষাপটে মঙ্গলবার প্রক্টর কার্যালয়ে দুই পক্ষকেই ডাকা হয়। সেখানে আতাউল্লাহ শারীরিক সম্পর্কের বিষয়টি স্বীকার করলেও বিয়ের বিষয়টি অস্বীকার করেন।

এসময় ওই ছাত্রীর দাবি অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দুই পক্ষকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু আতাউল্লাহ বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। এরপর ওই ছাত্রী কদমতলী থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। সূত্র: বিডিনিউজ।


বিডি-প্রতিদিন/এস আহমেদ

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow