Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:৫০
রাবিতে পরীক্ষা বন্ধে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি
রাবিতে পরীক্ষা বন্ধে ছাত্রলীগ নেতার হুমকি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্মান চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ না দিলে ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড লাইব্রেরী ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ওই বর্ষের পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ড্রপ আউট রাবি ছাত্রলীগ নেতা।

সোমবার দুপুরে বিভাগের সভাপতির কক্ষে ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম এ হুমকি দেন।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সাদ্দাম ২০১০-১১ সেশনে ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড লাইব্রেরী ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ভর্তি হন। প্রথম বর্ষ শেষ করার পর সে পরপর দুই বছর দ্বিতীয় বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশ নেননি। পরের বছর দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষা দিয়ে কৃতকার্য হলেও ২০১৫ সালে তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা দিলেও অকৃতকার্য হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী সর্বোচ্চ ছয় বছরে স্নাতক শেষ করতে না পারলে তার ছাত্রত্ব বাতিল হয়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সোমবার দুপুরে সাদ্দাম রাবি শাখা ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসালম রাঞ্জু ও সাধারণ সম্পাদক খালিদ হাসান বিপ্লবসহ বেশকিছু নেতাকর্মী নিয়ে ইনফরমেশন সায়েন্স বিভাগের সভাপতি ড. পার্থ বিপ্লব রায়ের সঙ্গে দেখা করে। এ সময় তারা সাদ্দামকে চতুর্থ বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দাবি করেন। বিভাগের সভাপতি বিষয়টি নাকচ করে দিলে বিভাগের পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেন সাদ্দাম।
 
বিভাগের সভাপতি ড. পার্থ বিপ্লব রায় বলেন, মঙ্গলবার থেকে চতুর্থ বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা শুরু হবে।   দুপুরে সাদ্দাম ছাত্রলীগের কিছু নেতাকর্মী নিয়ে বিভাগে এসে চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষায় অংশ নেয়ার অনুরোধ করে। কিন্তু ছাত্রত্ব না থাকায় তার পরীক্ষা নেয়ার কোন এখতিয়ার আমাদের নেই। বিষয়টি জানালে সাদ্দাম সব বর্ষের পরীক্ষা বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয়।

হুমকির বিষয়টি অস্বীকার করে শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম বলেন, তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষা দেয়ার সময় বিভাগের এক শিক্ষক দুইটি কোর্সে আমার খাতা কেড়ে নেয়। ওই দুই কোর্সে আমার ফেল এসেছে। বিভাগকে অনুরোধ করেছি ওই কোর্স দুটি পুনর্মূল্যায়ন করে আমাকে চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা দিতে দেয়া হোক। কিন্তু তারা তা বিবেচনা করেনি।

রাবি ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসলাম রাঞ্জু বলেন, সাদ্দাম সংগঠনের ত্যাগী নেতা। তাই তার বিষয়ে আমরা সুপারিশ করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু বিভাগের সভাপতি আমাদের কথা না শুনে খারাপ ব্যবহার করে বের করে দেন।

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow