Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ১৬:৪০
রাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু; পুলিশের টার্গেটে জালিয়াত চক্র
জয়শ্রী ভাদুড়ী, রাবি
রাবি শিক্ষার্থীর মৃত্যু; পুলিশের টার্গেটে জালিয়াত চক্র

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী মোতালেব হোসেন লিপুর মৃত্যুর নেপথ্যে জালিয়াত চক্রের যোগসাজশ আছে বলে সন্দেহ করছে পুলিশ। সে অনুযায়ীই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচনে পুলিশ তদন্তে নেমেছে।

গত বৃহস্পতিবার রাবির নবাব আব্দুল লতিফ হলের পেছনের নর্দমা থেকে ওই শিক্ষার্থীর রক্তাক্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। নগরীর মতিহার থানার দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, নিহত শিক্ষার্থীর এক পাটি জুতা রুমের সামনে এবং অন্যটি পাওয়া গেছে হলের পেছনের দিকে জঙ্গলে। এছাড়া লিপুর শরীরে সব সময় থাকা তাবিজ ওর বিছানায় পাওয়া গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে লিপুর কয়েকজন সহপাঠী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, গত বছরের শেষের দিকে একটি জালিয়াত চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে পরীক্ষায় প্রক্সি দেয়ার প্রস্তাবে রাজি হয় লিপু। কিন্তু পরীক্ষা দিতে গিয়ে গ্রেফতার হওয়ায় পূর্বশর্ত অনুযায়ী টাকা তাকে দেয়নি জালিয়াত চক্রটি। এ ঘটনার পরে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষায় তিনটি বিষয়ে অকৃতকার্য হয় লিপু। প্রক্সির টাকা নিয়ে ওই চক্রের সদস্যদের সঙ্গে দরকষাকষি চলছিলো লিপুর। টাকা পয়সার লেনদেন কিংবা চক্রের সদস্যদের পরিচয় ফাঁস হওয়ার আশঙ্কায় এ হত্যাকাণ্ড হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

লিপুর চাচা মো. বশির বলেন, কিছুদিন আগে লিপু আমাকে জানায়, সে নিয়োগ পরীক্ষায় জালিয়াতি করতে গিয়ে ধরা পড়েছিল। ওই চক্রের লোকজন তাকে নিয়মিত ফোন করতো। তাকে ফোনে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিতো। এই বিষয়টা নিয়ে লিপু খুব টেনশন করতো।

জানা যায়, মোতালেব হোসেন লিপু গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে নবাব আব্দুল লতিফ হলের ৩২৩ নম্বর কক্ষে ওঠেন। ১৫ দিনের মাথায় অজ্ঞাত কারণে হল থেকে নামিয়ে দেয়া হয় তাকে। তার কয়েক মাস পরে অ্যালট পেয়ে তিনি ২৫৩ নম্বর কক্ষে ওঠেন। হলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকালে হলের পেছনের নর্দমার যে জায়গায় তার মরদেহ পড়েছিল তার উপরের তিন তলায় সেই ৩২৩ নম্বর কক্ষ। ওই কক্ষের পেছনের জানালায় কোন গ্রিল নাই।

এ ঘটনার তদন্তের বিষয়ে জানতে চাইলে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি তদন্ত) অশোক চৌহান বলেন, ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। জালিয়াত চক্রের বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি। নিহত শিক্ষার্থীর রুমমেটকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। ঘটনার প্রত্যেকটি দিককেই আমরা যাচাই-বাছাই করে দেখছি।

 

বিডি প্রতিদিন/২১ অক্টোবর, ২০১৬/ফারজানা

 

আপনার মন্তব্য

সর্বশেষ খবর
up-arrow