Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১১ অক্টোবর, ২০১৮ ১৬:০০ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১১ অক্টোবর, ২০১৮ ১৬:৩৫
তিতলি'র প্রভাবে দক্ষিণাঞ্চলে বিরামহীন বৃষ্টি, লঞ্চ বন্ধ থাকায় দুর্ভোগ
নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল
তিতলি'র প্রভাবে দক্ষিণাঞ্চলে বিরামহীন বৃষ্টি, লঞ্চ বন্ধ থাকায় দুর্ভোগ

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’র প্রভাবে বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলে বিরামহীন বৃষ্টি হচ্ছে। এদিকে সম্ভাব্য দুর্যোগের আশংকায় দ্বিতীয় দিনের মতো সকল ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। যদিও ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশ এবং উড়িষ্যায় আঘাত হানায় বাংলাদেশে আঘাত হানার সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে স্থানীয় আবহাওয়া অফিস। তারপরও ‘তিতলির’ প্রভাবে গত বুধবার সন্ধ্যা ৭টার পর শুরু হওয়া বৃষ্টি এখনও অব্যাহত রয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৬ মিলিটিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস। এ সময় বাতাসের গতিবেগ ছিল প্রতি ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮ কিলোমিটার। 

সবশেষ বহস্পতিবার দুপুরের খবর অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সমুদ্র বন্দরে ৩ নম্বর এবং অভ্যন্তরীণ নদী বন্দরে জারি করা হয়েছে ২ নম্বর সতর্কতা সংকেত। 

বরিশাল আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র অবজারভার মো. আনিচুর রহমান জানান, সব শেষ খবর অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড় ‘তিতলি’ ভারতের উড়িষ্যা এবং অন্ধ্র প্রদেশ অতিক্রম করে ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়েছে। এটি আর বাংলাদেশের দিকে আসার সম্ভাবনা নেই। 

দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে গত বুধবার বিকেল থেকে স্থানীয় ও দূরপাল্লা রুটের সব ধরনের যাত্রীবাহী নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। কেন্দ্রীয় কর্তৃপক্ষের নির্দেশ পেলেই লঞ্চ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার কথা জানিয়েছে বরিশাল নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ। 

এদিকে, বহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে কেন্দ্রীয় বিআইডব্লিউটিএ উপকূলীয় এলাকা ছাড়া অন্যান্য রুটে যাত্রীবাহী নৌ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও বরিশাল বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগ এ ধরনের কোন নির্দেশনা পায়নি বলে জানিয়েছে। দুপুর ২টার পর বরিশালে সূর্যের দেখা মিলেছে। কেটে গেছে মেঘও। 

বরিশাল বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু অফিসে না থাকায় এবং তার মুঠোফোন বন্ধ থাকায় নৌ চলাচলের ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত পাওয়া যায়নি। তবে ওই অফিসের ট্রাফিক পরিদর্শক মো. কবির হোসেন দুপুর আড়াইটায় জানান, উপ-পরিচালক অফিসে নেই। কেন্দ্রীয় দপ্তরের পরিচালকের সাথে তিনি ফোনে কথা বলেছেন। তিনি তাকে বলেছেন, বরিশালের উপ-পরিচালকের সাথে কথা বলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন। কিন্তু উপ-পরিচালকের মুঠোফোন বন্ধ থাকায় কেন্দ্রীয় কর্মকর্তারা তার সাথে যোগযোগ করতে পারছে না। এ কারনে নৌ চলাচলের আডডেট সম্পর্কে তারা কিছুই জানতে পারছেন না।
 
বিডি-প্রতিদিন/১১ অক্টোবর, ২০১৮/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow