Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১ জুন, ২০১৬ ২৩:১৯
মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল আদায় আরও বাড়বে
————— ওবায়দুল কাদের
নিজস্ব প্রতিবেদক
মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল আদায় আরও বাড়বে

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আগামী পাঁচ বছরে মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল প্লাজা থেকে ১ হাজার ২৭৭ কোটি টাকার উপরে রাজস্ব আদায় হবে। রাজস্ব আদায়ের হার পরবর্তীতে ক্রমান্বয়ে আরও বাড়বে।

গতকাল সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সম্মেলন কক্ষে মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল প্লাজা ওয়েব বেইজড মনিটরিং পদ্ধতি এবং এক্সেল লোড স্টেশনের উদ্বোধন করে এসব কথা বলেন মন্ত্রী। ওবায়দুল কাদের বলেন, ওয়েব বেইজড মনিটরিং পদ্ধতির মাধ্যমে টোল আদায়ের জন্য কম্পিউটার সিস্টেম নেটওয়ার্ক (সিএসএন) লিমিটেডের সঙ্গে সড়ক জনপথ অধিফতরের পাঁচ বছর মেয়াদি চুক্তি হয়েছে। এ পদ্ধতি চালুর ফলে আগে যেখানে প্রতিদিন গড়ে ৪০-৫০ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হতো, এখন সেখানে গড়ে ৮০ লাখ টাকারও বেশি রাজস্ব আদায় হচ্ছে প্রতিদিন।

সড়ক ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘনা ও গোমতী সেতুর টোল প্লাজায় ছয়টি করে মোট ১২টি ওয়েস্কেল মেশিন বসানোর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এই কাজ শেষ হলে একইভাবে ওজনবাহী যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রিত হবে এবং সড়কের স্থায়িত্ব বৃদ্ধি পাবে। একই সঙ্গে ওয়েব বেইজড হওয়াতে রাজস্ব আদায়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বাড়বে।

ঢাকা-চট্টগ্রাাম মহাসড়কের সীতাকুণ্ডের দারোগার হাট এবং ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাথুলি নামক স্থানে দুটি কম্পিউটারাইজড এক্সেল লোড স্টেশন স্থাপনের উদ্বোধন করেছেন সেতুমন্ত্রী। তিনি বলেন, এ দুটি স্টেশন কানাডার কারিগরি সহায়তায় দেশীয় প্রতিষ্ঠান রেগনাম রিসোর্স লিমিটেডের মাধ্যমে স্থাপন করা হয়েছে। এই স্টেশন দুটি নির্মাণের ফলে কোনো ট্রাক বা লরি ওজন নির্দিষ্টসীমা অতিক্রম করলে তাকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে টোল প্লাজার ভেতরের কম্পিউটারে দেখা যায়। প্রিন্ট হয় এবং ডাটাবেজে প্রতিদিনই ডাটা সংরক্ষণ হতে থাকে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, এ দুটি স্টেশন নির্মাণের ফলে অতিরিক্ত পণ্যবোঝাই ট্রাক বা লরি আর পারাপার হতে পারবে না। এ দুটি স্টেশনে অনলাইন ওয়েব বেইজড ডাটা এবং ভিডিও মনিটরিং সিস্টেম সংযোজন করা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow