Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ৯ জুন, ২০১৬ ০১:৫১
প্রাথমিকের বৃত্তি নিয়ে বিপাকে মন্ত্রণালয়
আকতারুজ্জামান রুনকি
প্রাথমিকের বৃত্তি নিয়ে বিপাকে মন্ত্রণালয়

পঞ্চম শ্রেণির প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা (পিইসি) তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের পর বিপাকে পড়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। পিইসি বাতিলের পর কীভাবে পঞ্চম শ্রেণিতে উত্তীর্ণদের বৃত্তি দেওয়া হবে এ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি তারা। তবে অভিভাবকরা বলছেন, আগে বৃত্তির জন্য আলাদা পরীক্ষার আয়োজন করা হতো। এভাবেই শিক্ষার্থীদের বৃত্তির ধারা অব্যাহত রাখার অনুরোধ জানিয়েছেন তারা। প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী সমাপনী চালুর পর থেকে এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের মধ্য থেকেই বৃত্তি দেওয়া হচ্ছে। পিইসি উঠে গেলে পঞ্চম শ্রেণি উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের কীভাবে বৃত্তি দেওয়া হবে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান গতকাল বলেন, পরীক্ষা উঠে গেলে বৃত্তির কী হবে তা অনেকেই জানতে চায়। আমি তাদের বলেছি, পরীক্ষা না থাকলে সেখানে বৃত্তি কীভাবে থাকবে? তিনি আরও জানান, প্রাথমিক সমাপনী উঠে গেলে বৃত্তি দেওয়ার ব্যাপারে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পিইসি উঠে গেলে শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দেওয়া নিয়ে জটিলতার সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হুমায়ুন খালিদও। গতকাল তিনি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, পিইসি উঠে গেলে বৃত্তি দেওয়া নিয়ে নতুন সমস্যা সৃষ্টি হবে। সম্প্রতি বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে সচিব জানান, পিইসি কোনো সার্টিফিকেট পরীক্ষা নয়। এটি দিয়ে কোনো স্কুলে ভর্তিও হওয়া যেত না। শুধু শিক্ষার্থীদের বৃত্তি দিতে পিইসি পরীক্ষার আয়োজন করা হতো।  

আগামী বছর থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে পিইসি পরীক্ষা না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ বছরই শেষবারের মতো পঞ্চম শ্রেণিতে পিইসি পরীক্ষায় বসতে হচ্ছে শিশু শিক্ষার্থীদের। ২০১৭ সাল থেকে অষ্টম শ্রেণির পাঠ শেষে শিক্ষার্থীরা প্রাথমিক সমাপনীতে অংশ নেবে। এর ফলে এ বছর পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের প্রাথমিক সমাপনীর পর আগামী ২০১৯ সালে পুনরায় অষ্টম শ্রেণিতে প্রাথমিক সমাপনীর পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। এক সার্টিফিকেটের জন্য কেন শিক্ষার্থীরা দুই দফায় পরীক্ষায় অংশ নেবে এমন অভিযোগ তুলে বিক্ষোভে নেমেছেন অভিভাবকরা। প্রতিদিনই তারা রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করছেন।




up-arrow