Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৩ জুন, ২০১৬ ২২:৫৮
কূটনীতিকদের সম্মানে খালেদা জিয়ার ইফতার
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের কূটনীতিক ও মিশন প্রধানদের সঙ্গে ইফতার করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। গতকাল রাজধানীর গুলশানে হোটেল ওয়েস্টিনে এ ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেন তিনি। এতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেনস ব্লুম বার্নিকাট, যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার ব্লেক অ্যালিসন, নরওয়ের রাষ্ট্রদূত মেরেতো লুনডেমো, ইতালির মারিও পালমা, কুয়েতের রাষ্ট্রদূত আবদেল মোহাম্মদ এ এইচ হায়াত, সংযুক্ত আরব আমিরাতের সাইদ বিন হাজার আল শাহি ছাড়াও ঢাকায় কূটনীতিক কোরের ডিন মিসরের রাষ্ট্রদূত মাহমুদ ইজ্জাত, পাকিস্তানের সুজা আলম, ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত সোফি অ্যাবট, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত পিয়েরে মায়াদুন খালেদা জিয়ার সঙ্গে একই টেবিলে ইফতার করেন। এছাড়া ভারতীয় দূতাবাসের রাজনৈতিক কাউন্সিলরও এতে অংশ নেন।

উগ্রবাদ নির্মূলে চাই ঐক্যবদ্ধ লড়াই : যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় নৈশক্লাবে গুলি চালিয়ে ৫০ জনকে হত্যার নিন্দা জানিয়ে উগ্রবাদ নির্মূলে  বিশ্বের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। যুক্তরাষ্ট্রে এই ধরনের ‘সন্ত্রাসী হামলা’য় বাংলাদেশিরাও উদ্বিগ্ন জানিয়ে গতকাল এক বিবৃতিতে এই আহ্বান জানান তিনি। ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে সমকামীদের ওই নৈশক্লাবে ওমর মতিন নামে যে আফগান বংশোদ্ভূত নির্বিচার গুলি চালিয়েছিল, তিনি আইএস সমর্থক বলে এফবিআইর সন্দেহ। আইএসও দাবি করেছে, মতিন তাদের লোক। বিবৃতিতে খালেদা জিয়া বলেন, “ফ্লোরিডার অরল্যান্ডো শহরে নাইটক্লাবে উগ্রবাদী দুষ্কৃতকারীদের হামলা শুধু অমানবিকই নয়, এটা কাপুরোষিত। উগ্রবাদের ভৌগলিক বিস্তৃতি খুব দ্রুতগতিতে অগ্রগতি লাভ করেছে। এদের কর্মকাণ্ড সারা বিশ্বকেই হুমকির মুখে ফেলেছে। আমরা মনে করি, এই হামলা সহিষ্ণুতা, সামাজিক সম্প্রীতি ও মানবতার উপর হামলা।” বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, “সন্ত্রাসীদের কোনো রাষ্ট্রীয় সীমানা নেই। সারাবিশ্বকে অস্থিতিশীল করে সন্ত্রাসীরা নিজেদের মতাদর্শকে চাপিয়ে দিতে চায় মানুষের উপর। এটি করতে গিয়ে তারা আশ্রয় নিয়েছে হিংস পশুশক্তির। ‘আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদের নেটওয়ার্ক গড়ে উঠেছে মধ্যযুগীয় অন্ধকার পরিব্যাপ্ত করার জন্য’ মন্তব্য করে তিনি বলেন, শুভবুদ্ধিসম্পন্ন সব মানুষ উদ্দীপ্ত বদ্ধপরিকরভাবে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদকে চূড়ান্ত নির্মূল করতে না পারলে কালের পরম্পরায় বিশ্বব্যাপী মানুষের সব অর্জন সন্ত্রাসবাদের অন্ধগলিতে হারিয়ে যাবে। বাংলাদেশে সম্প্রতি সমকামী অধিকারকর্মীসহ লেখক, প্রকাশক, অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট, বিদেশি, হিন্দু পুরোহিত, খ্রিস্টান যাজক, বৌদ্ধ ভিক্ষু, শিয়া ও আহমদিয়া মুসলিমদের উপর হামলার ঘটনায় আইএস কিংবা আল কায়দার নামে দায় স্বীকারের বার্তা আসে। তবে সরকারের পক্ষ থেকে ওইসব ঘটনায় আন্তর্জাতিক জঙ্গিগোষ্ঠীর জড়িত থাকার সম্ভাবনা নাকচ করে বলা হচ্ছে, দেশীয় জঙ্গিরাই হামলা চালিয়ে আইএস-আল কায়দার নাম দিচ্ছে।

খালেদা জিয়া বলেন, ফ্লোরিডার এই মর্মান্তিক ও হৃদয়বিদারক ঘটনা বাংলাদেশের জনগণ ও বিএনপির সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীকে উদ্বিগ্ন করে তুলেছে। তিনি বলেন, বন্দুকধারীর ওই হামলায় ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় আমি দ্বিধাহীন কণ্ঠে তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করছি। এই নৃশংস ঘটনায় প্রকৃত দায়ী ও চক্রান্তকারীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

যুক্তরাষ্ট্রে সমকামীদের নৈশক্লাবে হামলার নিন্দা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও।  তিনিও সমাজ থেকে এই ‘বিদ্বেষমূলক ঝুঁকি’ নির্মূলে ঐক্যবদ্ধ উদ্যোগ নিতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow