Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৪ জুন, ২০১৬ ০১:৫০
বংশালে দাহ্য পদার্থের ভয়ে দিন কাটে অনেকের
শ্যামপুর টু লালবাগ ৭
মাহবুব মমতাজী
বংশালে দাহ্য পদার্থের ভয়ে দিন কাটে অনেকের

ঘিঞ্জি পরিবেশ ও অত্যন্ত ঘনবসতি আর দাহ্য পদার্থের বিপদের প্রসঙ্গ উঠলেই ফিরে আসে বংশাল থানা এলাকার কথা। সাইকেল, নাট-বোল্টু, পারফিউম, কেমিক্যাল, প্লাস্টিক কার্পেট, প্লেন শিট, রড, পাইপ ও বিভিন্ন কাঠের সামগ্রীর জমজমাট বাণিজ্য চলে এ এলাকায়।

নকল প্রসাধনীর উৎপাদন, আবাসিক ভবনের নিচে জুতার এবং কেমিক্যালের দোকানের কারণে বাসিন্দাদের মধ্যে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করে প্রতিনিয়ত। এ অঞ্চলের যেসব ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান আছে— আয়শা (রা.) জামে মসজিদ, তারা মসজিদ, আল মদিনা মসজিদ, বাবুবাজার জামে মসজিদ, বায়তুন নূর জামে মসজিদ, বায়তুল মামুর জামে মসজিদ, বংশাল রোড বড় মসজিদ, ভিতরবাড়ী লেন জামে মসজিদ, বোখারি জামে মসজিদ, গোয়ালঘাট বায়তুন নূর জামে মসজিদ, হাজী মঈনউদ্দীন রোড জামে মসজিদ, হিঙ্গাবিবি জামে মসজিদ, কসাইটুলি মসজিদ, কে পি ঘোষ লেন জামে মসজিদ, জিন্দাবাহার জামে মসজিদ; গোয়ালনগর লেনের মন্দির, মধুসূদন মন্দির ও  শিব মন্দির। উল্লেখযোগ্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো হলো— আহমদ বাওয়ানী কলেজ, আরমানিটোলা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, আজিজিয়া ইসলামিয়া স্কুল, আনন্দময়ী বালিকা বিদ্যালয়, বংশাল গার্লস হাইস্কুল, নওয়াবপুর সরকারি উচ্চবিদ্যালয়, মিল্লাত উচ্চবিদ্যালয়, বংশাল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইউসেপ স্কুল, ইসলামিয়া সালেহা উলুম মাদ্রাসা, শহীদ জিয়াউর রহমান স্কুল, কসাইটুলি আদর্শ মহিলা মাদ্রাসা, মদিনাতুল উলুম হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও মাহমুদা খাতুন মহিলা ফাজিল মাদ্রাসা।

জানা যায়, ৪০০ বছর বয়সী ঢাকা নগরীর অন্যতম এলাকা বংশাল। ব্যবসায়িক দিক থেকে এ এলাকাটির গুরুত্ব অপরিসীম। তবে বংশালের ঐতিহ্য ধরে রেখেছে এর রাস্তা ও লেনগুলো। ঢাকার মানচিত্রে বংশাল এলাকাটিকে বেশ বড় মনে হলেও মূল বংশাল বিস্তৃত হয়েছে হাজী আবদুল্লাহ সরকার লেন, বংশাল লেন এলাকার সমন্বয়ে। বংশালের প্রাকৃতিক পরিবেশকে অত্যন্ত মনোরম বলা হয়। বাণিজ্য হওয়ায় দিনে কোলাহলময় থাকলেও রাতের দিকে তা মোটামুটি শান্ত হয়ে যায়। এখানে রয়েছে ঢাকার ঐতিহ্যবাহী বংশাল পুকুর। চারদিকে গাছপালায় বেষ্টিত ও শান বাঁধানো ঘাট এ পুকুর বংশালের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক। নির্দিষ্ট ফি দিয়ে ঢাকার যে কেউ গোসল করতে পারেন। পুকুরটি হাজী আবদুল্লাহ সরকার লেনের দক্ষিণ প্রান্তে নয়াবাজারসংলগ্ন। বংশাল এলাকাটি ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের আওতাভুক্ত।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, গোলকপাল লেন, ৪ নম্বর গোলকপাল লেন, ৫ নম্বর গোলকপাল লেন, পাগলা হুজুরের গলি, পুরানা মোগলটুলী লেন, সুরিটোলা রোড, বংশাল রোড, লুত্ফর রহমান লেন, নবাব ইউসুফ রোড ও ফ্রেঞ্চ রোডগুলোয় ময়লা-আবর্জনা দূরীকরণে রয়েছে চরম অব্যবস্থাপনা। এ সড়কগুলোর আশপাশের ভবনগুলো কোনো ধরনের বিল্ডিং কোড ছাড়াই অপরিকল্পিতভাবে নির্মিত। যেখানে ঠাসাঠাসি করে বাস করেন বাসিন্দারা। তবে সুরিটোলা স্কুলের সামনে গুলিস্তান-সদরঘাট সড়কের ওপর ময়লার বিশাল ভাগাড় নিয়ে এলাকাবাসীর দুঃখের শেষ নেই। আর সামান্য বৃষ্টিতে লুত্ফর রহমান লেনটি হয়ে যায় সাগর। হাঁটাচলায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় সাধারণ মানুষকে। গোলকপাল লেন ও বংশাল পুকুরপাড় এলাকায় মাদকের উৎপাত বেশি বলে জানান স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর।

এক ভবনের সঙ্গে ঘেঁষে গড়ে ওঠা আরেক ভবন এখানকার চিরচেনা চিত্র। নিচে কেমিক্যাল ও জুতার কারখানা আর ওপরে বাসস্থান। প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার আতঙ্কে দিন কাটাতে হয় তাদের। জানা যায়, এ বছরের ২৪ মার্চ বংশালের আলুবাজার এলাকায় একটি জুতার কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে আবদুল্লাহ (২৫), আলী আক্কাছ (৪৫) ও মো. জসিম (৪০) দগ্ধ হন।

এলাকাটি অলিগলিতে ভরা এবং ঘিঞ্জি অন্ধকারাচ্ছন্ন হওয়ায় সন্ত্রাসীদের আনাগোনা বেশি থাকে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর। জানা যায়, ২০১৩ সালের ৪ মার্চ নয়াবাজার এলাকার ১৪ নম্বর ফ্রেঞ্চ রোডের তানজিলা এন্টারপ্রাইজসংলগ্ন বাড়ির দ্বিতীয় তলায় বোমা বানানোর সময় বিস্ফোরণ ঘটে। এ সময় মোশাররফ হোসেন বকুল নামে একজন গুরুতর আহত হন। বিস্ফোরণে বাড়ির জানালার কাচ ভেঙে রাস্তায় পড়লে কয়েকজন পথচারীও আহত হন। ২০১১ সালের ৮ মে নর্থ সাউথ রোডে সন্ত্রাসীদের গোলাগুলিতে পাঁচজন আহত হন। ২০১৪ সালের ১২ অক্টোবর সুরিটোলায় সন্ত্রাসীদের দুই গ্রুপের গোলাগুলিতে আট বছরের এক শিশু গুলিবিদ্ধ হয়।

এখানকার বিভিন্ন রাস্তার পাশের বাসাবাড়িতে অসাধু উদ্দেশ্যে গড়ে তোলা হয়েছে ভেজাল পণ্যসামগ্রীর খনি। আর এসব খনির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে স্থানীয় বিভিন্ন প্রভাবশালী মহল। জানা যায়, অসাধুরা গার্মেন্ট কারখানার কাপড় ধোয়ার কাজে ব্যবহার্য তরল সাবানের সঙ্গে বিভিন্ন রং ও সেন্ট মিশিয়ে শ্যাম্পু তৈরি করে অবৈধ ভেজাল পণ্যের রাজ্য গড়ে তুলেছে। নিম্নমানের স্পিরিটের সঙ্গে রং মিশিয়ে সিরিঞ্জ দিয়ে খালি কনটেইনারে ভরে বডি স্প্রে তৈরি করে বাজারজাত করে তারা। সারা দেশ থেকে ব্যবহৃত পণ্যের খালি কনটেইনার জোগাড় করে নেওয়া হয় বংশাল ও মালিটোলা এলাকায়। পরে ওই সব কনটেইনারে নকল প্রসাধনী ঢোকানো হয়। প্রভাবশালী ও অসাধু চক্রগুলো বিভিন্ন ফেরিওয়ালার কাছ থেকে কাগজ ও খালি কনটেইনার কিনে নেয়। খালি কনটেইনার ব্যবহার করে পেনটিন, ডাব, হেড অ্যান্ড শোল্ডার, সানসিল্ক, ক্লিয়ারসহ বিভিন্ন নামিদামি ব্র্যান্ডের শ্যাম্পু এবং মেক্সি, এক্স ও ডয়েটসহ নামি ব্র্যান্ডের বডি স্প্রে, লোশন তৈরি করে বিক্রি করা হয়। মালিটোলার স্থানীয় প্রভাবশালী ময়না হাজীর ১৫ নম্বর বাড়ির নিচতলায়, দোতলায় ও আশপাশে অন্তত ১৮টি ভেজাল কসমেটিক্স এবং নকল প্রসাধনী তৈরির কারখানা রয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। ২০১৪ সালের ৭ জুলাই র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ার পাশার নেতৃত্বে এসব গোডাউনে অভিযান চালিয়ে প্রায় ১০ ট্রাক ভেজাল প্রসাধনসামগ্রী, তৈরির নানা উপকরণ, খালি কনটেইনার, কাগজের মোড়ক, লেবেল, হলোগ্রাম ও কাঁচামাল জব্দ করা হয়। এ সময় আনোয়ার হাওলাদার ও ছানোয়ার হাওলাদার নামে দুজনকে আটক করে দুই বছর করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। এ ছাড়া দুই লাখ করে মোট চার লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন মাসের কারাদণ্ড দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত।

এর পরও ২৬ নম্বর পুরানা মোগলটুলির উল্টো দিকের গলির শেষের দিকের ঘরগুলোয় নকল উৎপাদন চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

নগরবাসীর অসচেতনতা আর প্রভাবশালীদের লোলুপ দৃষ্টিতে বংশাল ও মালিটোলা পার্ক দুটি হারিয়ে যেতে বসেছে। জানা গেছে, বংশাল পার্ক ব্রিটিশ আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়। ক্ষুদ্র পরিসরে স্থাপিত পার্কটি ঢাকার নারীদের কাছে জনপ্রিয় ছিল। সময়ের ব্যবধানে পার্কটি তার মূল আয়তনের সিংহভাগই হারিয়েছে। বর্তমানে এর আয়তন প্রায় ০.০৩ একর। ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের আগে ও পরে অন্তত তিন দফায় বংশাল পার্কের জায়গা দখল করে সংলগ্ন রাস্তা সম্প্রসারণ করা হয়েছে। ইংলিশ রোড মালিটোলা পার্কটি ১৯.৬০ কাঠা জায়গাজুড়ে বিস্তৃত ছিল। পার্কটি দখলের জন্য দীর্ঘদিন বর্জ্যের ভাগাড়ে পরিণত করা হয়েছিল। পুরনো ভবনের বর্জ্য অপসারণ করে তার চারপাশে দুই ফিটের ইটের গাঁথুনি দিয়ে ঘের দেওয়া হলেও ছোট আর মাঝারি ট্রাক দখল করে নিয়েছে পার্কটির দুই দিক।

এলাকার ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাজী মো. আবু সাঈদ বলেন, ‘এখন এ এলাকাটি আর আবাসিক নেই। সবটিই বাণিজ্যিক হয়ে গেছে। প্রতিটি বাড়িতে একটি করে জুতার কারখানা আর কেমিক্যাল গোডাউন। আর নকল প্রসাধনী প্রতিরোধে র‌্যাব একাধিকবার অভিযান চালিয়েছে। তবে আমরা তা নির্মূলের জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছি। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow