Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ১৫ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১৪ জুন, ২০১৬ ২৩:০৯
বৃদ্ধার ঘরে আওয়ামী লীগ অফিস করতে দিলেন না শামীম ওসমান
সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি

অবশেষে বৃদ্ধা নারীর পাশে দাঁড়ালেন সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। কোনো নিরীহ বৃদ্ধা নারীর ঘর দখল করে আওয়ামী লীগ কার্যালয় স্থাপনের অধিকার কাউকে দেওয়া হয়নি। এ বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘাটনে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ফলে সুফিয়া নামে ওই বৃদ্ধার দোকানে যুবলীগের দলীয় কার্যালয় হচ্ছে না।

এলাকাবাসী জানান, সুফিয়া নামে এক বৃদ্ধা বাড়ির সামনে তিনটি দোকান নির্মাণ করেন ভাড়া দেওয়ার জন্য। ওই দোকানের একটি গত কয়েক দিন আগে গোদনাই ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা প্রসূন চায়ের দোকান করার জন্য বৃদ্ধার ছেলের কাছ থেকে ভাড়া নেয়। ওই সময় বৃদ্ধার ছেলেকে ১০ হাজার টাকা অগ্রিম দিয়েছিল প্রসূন। কিন্তু প্রসূন ও যুবলীগের আরও কয়েক নেতা ওই দোকান ঘরে চায়ের দোকানের পরিবর্তে  যুবলীগের দলীয় কার্যালয় করার সিদ্ধান্ত নেয়। তাদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক সোমবার ওই দোকানে বঙ্গবন্ধুর ছবিসহ আওয়ামী লীগ নেতাদের ছবি সাঁটিয়ে ও সাটারে রং দিয়ে দলীয় কার্যালয় করা হয়। কিন্তু বৃদ্ধা সুফিয়া বেগম চায়ের দোকানের পরিবর্তে দলীয় কার্যালয় করতে বাধা দেন। এ সময় তিনি অফিসে এসে অবস্থান নেন। পরে ব্যাপারটি নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের এমপি শামীম ওসমানের কাছে পৌঁছায়। পরবর্তীতে শামীম ওসমানের নির্দেশে গতকাল দলীয় কার্যালয় করা থেকে পিছু হটে যুবলীগের নেতা-কর্মীরা। এ সময় পুলিশের উপস্থিতিতে অগ্রিম নেওয়া টাকা ফেরত দেন বিধবা সুফিয়া বেগম। এ বিষয়ে শামীম ওসমান মুঠোফোনে বলেন, ‘যে-ই অন্যায় করুক তার ছাড় নাই। নিরীহ বৃদ্ধার বাড়ি দখল করে আওয়ামী লীগ কার্যালয় স্থাপনের বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেখানে প্রকৃত কী ঘটনা ঘটেছে তা উদ্ঘাটন করতে পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। দোষীরা ছাড় পাবে না। সে যে-ই হোক।’ এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি সরাফত উল্লাহ জানান, সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইলে বৃদ্ধার দোকান ঘর ভাড়া নিয়ে যুবলীগের কার্যালয় স্থাপনের ব্যাপারে সুষ্ঠু তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন শামীম ওসমান। এ ব্যাপারে গোদনাইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল বারী বলেন, দখলের কোনো ঘটনা ঘটেনি। ওই দোকান আমাদের যুবলীগের এক কর্মী ভাড়া নিয়েছিল চায়ের দোকান দেওয়ার জন্য। পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে দলীয় কার্যালয় করতে চেয়েছিল সে। কিন্তু মহিলার আপত্তির কারণে এবং আমাদের নেতা শামীম ওসমানের নির্দেশে ওই দোকান ঘরে দলীয় কার্যালয় হবে না। মহিলা থেকে অগ্রিম টাকা ফেরত নিয়ে প্রসূনকে দিয়ে দেওয়া হয়েছে।




up-arrow