Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ২৬ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ জুন, ২০১৬ ২৩:৫৮
রোদে শিক্ষার্থীরা সেতু মন্ত্রীর ক্ষোভ
সাভার প্রতিনিধি

শিক্ষার্থীদের রোদে দাঁড় করিয়ে রাখায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সেতু ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে আয়োজকদের তিরস্কার করেন মন্ত্রী। তিনি আয়োজকদের এ ধরনের কাজ ভবিষ্যতে না করানোর জন্য নির্দেশ দেন। গতকাল এমন কাজের জন্য সাভারের আশুলিয়ার বাইপাইল-আব্দুল্লাহপুর সড়কের ইউনিক এলাকায় টাঙ্গাইল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ মো. আবদুল লতিফ ও সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মকর্তাদের তীব্র ভাষায় তিরস্কার করেন তিনি। ওবায়দুল কাদের রিজিড পেভমেন্টের উদ্বোধন করতে এসে টাঙ্গাইল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ মোঃ আবদুল লতিফের ওপর ক্ষুব্ধ হন এবং শিক্ষার্থীদের রোদ থেকে সরে যেতে বলেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আশুলিয়া-আব্দুল্লাপুর বাইপাইল সড়কের ইউনিক এলাকায় শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় রিজিড পেভমেন্টের উদ্বোধন করার কথা ছিল। এ উপলক্ষে মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা দেওয়ার জন্য সওজ ও স্কুল কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বেলা ১১টা থেকে ক্লাস বন্ধ রেখে টাঙ্গাইল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের দুই শতাধিক শিক্ষার্থী মহাসড়কের দুই পাশে সারিবদ্ধভাবে অবস্থান নেয়। তবে যথাসময়ে না এসে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ইউনিক এলাকায় পৌঁছেন ওবায়দুল কাদের।

এ সময় দেড় ঘণ্টা রোদে দাঁড়িয়ে থাকা কোমলমতি শিক্ষার্থীরা মন্ত্রীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায়। মন্ত্রী শিক্ষার্থীদের রাস্তায় দাঁড়ানো দেখে আয়োজকদের কাছে জানতে চান কেন তাদের রোদের মধ্যে দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছে। আয়োজকরা এর কোনো সদুত্তর দিতে না পারায় মন্ত্রী তাদের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে এ ঘটনার জন্য তিরস্কার করেন তাদের। একই সঙ্গে তিনি শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে বলেন। এর পর মন্ত্রী ১৪ কোটি টাকা ব্যয়ে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের রিজিড পেভমেন্টের উদ্বোধন করেন।

বিষয়টি জানতে প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ আবদুল লতিফের কাছে সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ভাই বিষয়টি একটু চেপে যান। এর পর তিনি স্কুল থেকে দৌড়ে পালিয়ে যান। পরে সড়ক ও জনপদের নির্বাহী কর্মকর্তা সবুজ উদ্দিনের মুঠোফোনে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এ ব্যাপারে সাভার উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাহারিয়ার মেনজিস বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, শিক্ষার্থীদের রাজনৈতিক কারণে রাস্তায় দাঁড় করিয়ে রাখা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow