Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, বুধবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫১
ছয় মাসে তিন নারীসহ ২৯ জনের মৃত্যুদণ্ড
গাদাগাদি করে সেলবাস
নিজস্ব প্রতিবেদক, রংপুর

রংপুরে গত ছয় মাসে তিন নারীসহ ২৯ জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের আদেশ দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে জেলা ও দায়রা জজ আদালত ১ জন এবং অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত ২৮ জনকে ফাঁসির আদেশ দেয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের মধ্যে ২ নারীসহ ১১ জন পলাতক রয়েছে। এদিকে ফাঁসির সেলের ধারণ ক্ষমতার চেয়ে আসামির সংখ্যা অনেক বেশি হওয়ায় হিমশিম খাচ্ছে রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগার কর্তৃপক্ষ।

জানা গেছে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত সময়ে এসিড নিক্ষেপ ও হত্যাসহ পৃথক ১১টি মামলার রায়ে ২৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয় জোড়া খুনের একটি মামলায়। গত বৃহস্পতিবার এ মামলার রায়ে ১০ ডাকাতকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। এ ছাড়া স্বামী হত্যায় স্ত্রী, ছেলে হত্যায় মা ও বোন হত্যায় ভাইকেও মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

এদিকে কারা আইন অনুযায়ী কোনো আসামির ফাঁসির আদেশ হওয়ার পর থেকেই একজন আসামিকে একটি সেলে রাখার বিধান রয়েছে। কিন্তু রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে ফাঁসির আসামি রয়েছে এক নারীসহ ৪৭ জন। সেল রয়েছে ১০টি। এর মধ্যে ৯টি পুরুষ সেলে গাদাগাদি করে বাস করছে ৪৬ আসামি। রংপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার আবদুল কুদ্দুস জানান, একটি সেলে ফাঁসির ১ থেকে সর্বোচ্চ ৩ জন আসামি রাখা যায়। সেখানে ৫ জনের বেশি রাখা হচ্ছে। আগামীতে ফাঁসির আসামি এলে তাকে রাখা সম্ভব হবে না।

up-arrow