Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ২১ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ জুলাই, ২০১৬ ০৩:০৩
থমকে আছে মামলার তদন্ত
নিজস্ব প্রতিবেদক
থমকে আছে মামলার তদন্ত

পুলিশের এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু হত্যা মামলার তদন্তে অগ্রগতি নেই। মামলার তদন্ত হঠাৎ থমকে গেছে। কারা এই খুনের সঙ্গে জড়িত, তা এখনো নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। এদিকে ৪১ দিন ধরে কর্মস্থলে অনুপস্থিত এসপি বাবুল আক্তারের চাকরি আছে কি নেই, এ বিষয়টিও স্পষ্ট নয়। চট্টগ্রাম পুলিশ বলছে, বাবুল আক্তার সদর দফতরের। তার বিষয়ে চট্টগ্রাম কিছু জানে না। পুলিশ সদর দফতরও তার বিষয়টি পরিষ্কার করছে না। বাবুল নিজেও রয়েছেন চুপ। এমন এক পরিস্থিতিতে মিতু হত্যার ঘটনাটি ক্রমশই রহস্যজনক হয়ে উঠছে।

একটি সূত্র জানায়, জঙ্গিবিরোধী সফল অভিযানের নেতৃত্বদানকারী বাবুল আক্তারের স্ত্রী খুনের যোগসূত্র খুঁজতে গিয়ে কিছুই পায়নি পুলিশ। মিতু হত্যা মামলায় রবিন ও গুন্নু নামে আরও দুজনকে রিমান্ডে নেওয়া হয়েছিল। এ পর্যন্তই। তদন্ত এর বেশি আর এগোয়নি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশ সদর দফতরের একাধিক কর্মকর্তা বলেন, স্ত্রী মাহমুদা খানম (মিতু) খুন হওয়ার পর থেকে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত এই কর্মকর্তা আর কর্মস্থলে আসছেন না। তিনি ছুটির আবেদনও করেননি; বরং তার পদত্যাগপত্র পড়ে আছে। এটি গ্রহণ করা হবে কিনা, তা নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না সদর দফতর। বাবুলের কর্মস্থলে অনুপস্থিতের বিষয়ে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনও কিছুই জানেন না বলে জানিয়েছেন। গত ৫ জুন সকালে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় চট্টগ্রামের জিইসি এলাকায় গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহমুদা। হত্যার পর বাবুল আক্তার অজ্ঞাত পরিচয় তিন ব্যক্তিকে আসামি করে মামলা করেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow