Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ২৩ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ জুলাই, ২০১৬ ০৩:৫৯
জঙ্গিবিরোধী অভিযানের মধ্যেও ছিনতাইকারীদের দৌরাত্ম্য
পুলিশি ঝামেলা এড়াতে থানায় যান না ভুক্তভোগীরা
মাহবুব মমতাজী

সম্প্রতি জঙ্গি তত্পরতার ঘটনায় রাজধানীতে বাড়ানো হয়েছে তল্লাশি চৌকি। সাধারণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে। আগের চেয়ে বিভিন্ন স্থানে পুলিশি পাহারা বসানো হয়েছে কয়েক গুণ। এর পরও ছিনতাই আর চুরির ঘটনা বেড়েই চলেছে। এমনকি ছিনতাইকারীর আঘাতে আহত হয়ে মারাও যাচ্ছেন অনেকে। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী, মিরপুর, নিউমার্কেট, শ্যামলী শিশুপার্ক, গুলিস্তান, মালিবাগ, রামপুরা ও বনানীর কাকলী এলাকায় এসব অহরহ ঘটছে। বেশির ভাগ ছিনতাইয়ের ঘটনায় ব্যবহার করা হয় মোটরসাইকেল। ছিনতাইয়ের ঘটনা  প্রতিনিয়ত  ঘটলেও  পুলিশি ঝামেলা এড়াতে থানায় যেতে আগ্রহ হারান ভুক্তভোগীরা। পুলিশও বাড়তি তদন্তের ঝামেলা এড়াতে নানা অজুহাত তোলে ছিনতাই মামলা না নেওয়ার ক্ষেত্রে।

সম্প্রতি রূপনগর আবাসিক এলাকার শিয়ালবাড়ীতে রিকশায় করে চলাচলের সময়ও মোটরসাইকেলে থাকা পেছনের জন হাতে ব্যাগ বা বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে পালিয়ে যায়। বারী নামে এক ভুক্তভোগী জানান, তিনি রিকশায় করে পুরান ঢাকার দিকে যাচ্ছিলেন। জিরো পয়েন্টে পৌঁছলে একটি প্রাইভেট কারে ছিনতাইকারীরা এসে তার ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নগদ আট হাজার টাকা ও প্রয়োজনীয় কিছু কাগজপত্র খোয়া যায়। কামরুল নামে একজন জানান, কয়েক দিন আগে রিকশায় করে অফিস থেকে ফেরার পথে মালিবাগে মোটরসাইকেলে থাকা দুজন তার ব্যাগ টেনে নেওয়ার চেষ্টা করে। তিনি ব্যাগ টেনে ধরার কারণে তারা দ্রুত পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় তিনি রিকশা থেকে পড়ে আহত হন।

জানা গেছে, ছিনতাইকারীদের হাতে আহত ব্যক্তিরা যখন চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যান তখন তা গণমাধ্যমে প্রকাশ পায়। আর বেশির ভাগ মানুষ ছিনতাইয়ের শিকার হওয়ার পরও হয়রানি ও ঝামেলার আশঙ্কায় মামলা করেন না। কেউ কেউ মামলা করতে গেলেও থানা তা সহজে নিতে চায় না।   মামলা হলেও ছিনতাই হওয়া টাকা উদ্ধার করতে পারে না পুলিশ।

১৪ জুলাই যাত্রাবাড়ীর কলাপট্টি ক্রীড়া চক্র রাস্তার সামনে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে আহত হন রাজীব (৩৫) নামে এক যুবক। ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় দুই দিন পর তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় মৃতের স্ত্রী বাদী হয়ে মামলা করলেও এখন পর্যন্ত কোনো কিনারা করতে পারেনি পুলিশ। ১ জুলাই হলি আর্টিজানে হামলার ঘটনার পর রেড অ্যালার্ট জারির ঘোষণা দিয়েছিলেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow