Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩১ আগস্ট, ২০১৬ ২২:৫৬
তিস্তায় সুবর্ণের কোচ যুক্ত করা নিয়ে সংশয় ঘনীভূত
পূর্বাঞ্চল রেলের সদর-অন্দর ১
সাইদুল ইসলাম, চট্টগ্রাম
তিস্তায় সুবর্ণের কোচ যুক্ত করা নিয়ে সংশয় ঘনীভূত

পূর্বাঞ্চল রেলের সবচেয়ে লাভজনক রেল সার্ভিস সুবর্ণের কোচ তিস্তা এক্সপ্রেসে যুক্ত করা নিয়ে নানা প্রশ্ন ওঠা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে এতে লাভের বদলে লোকসান অনিবার্য হয়ে উঠবে কিনা- তা নিয়ে সংশয়ও দেখা দিয়েছে।

ওয়াকিবহাল সূত্রগুলো বলছে, দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ও লাভজনক যাত্রীবাহী ট্রেন সুবর্ণ এক্সপ্রেস। বিরতিহীন ট্রেনটি রেলের যাত্রী আয় ও সেবার মানে সবচেয়ে এগিয়ে। ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা নতুন কোচ থেকে সুবর্ণ এক্সপ্রেসের জন্য ১৮ কোচের একটি রেকও তৈরি করা হয়। গত ১৬  আগস্ট সুবর্ণ ট্রেনে নতুন কোচের একটি রেক পরিচালনায় একটি দফতরাদেশও দেওয়া হয়।

২৩ আগস্ট থেকে নতুন কোচ দিয়ে সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচলের কথা থাকলেও রেলপথ মন্ত্রণালয় ‘অনিবার্য কারণ’ দেখিয়ে গত ১৮ আগস্ট তা বাতিল করে দফতরাদেশ দেয়। পরে সুবর্ণ এক্সপ্রেসের জন্য প্রস্তুত রেক দিয়ে আগামী ২ সেপ্টেম্বর থেকে তিস্তা এক্সপ্রেসে সংযোজনে নতুন দফতরাদেশ দেওয়া হয়। এতে অধিকতর কম গুরুত্বপূর্ণ ও অলাভজনক রুটে ‘তিস্তা এক্সপ্রেস’ ট্রেনে রেকটি চালু হলে রেলের আয় কম হবে। একইভাবে ঢাকা-সিলেট রুটের পারাবত এক্সপ্রেসেও নতুন আমদানি করা কোচ দিয়ে ট্রেন চালানোর ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে রেকটি দিয়ে তিস্তা এক্সপ্রেস হিসেবে চলাচল করতে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিও নেওয়া হয়েছে।

রেলসংশ্লিষ্টরা বলছেন, রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অনিচ্ছা থাকা সত্ত্বেও এত কম আয়ের রুটে কেন নতুন দফতরাদেশ দেওয়া হলো- তা নিয়ে গুঞ্জন চলছে খোদ রেল অঙ্গনসহ ঢাকা-চট্টগ্রামে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে। তবে এ নিয়ে অনেকেই মুখ খুলতে রাজি নন। রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, সুবর্ণ এক্সপ্রেসের জন্য ১৬ কোচের রেক তৈরি করা হলেও তিস্তা এক্সপ্রেসে ১৮টি কোচের রেক পাঠানো হচ্ছে। এর আগে তিস্তায় শোভন চেয়ার কোচের আধিক্য থাকলেও নতুন রেক কম্পোজিশনে ৭টি এসি চেয়ার কোচ রাখা হয়েছে। যা আসন শূন্য থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করছে রেলওয়ের পরিবহন বিভাগ। কমলাপুর রেলস্টেশনের ব্যবস্থাপক সীতাংশু চক্রবর্তী বলেন, নতুন রেকের তিস্তা এক্সপ্রেসে ১৮টি কোচ রয়েছে। এসব কোচে মোট আসন সংখ্যা ৯১৪টি। এর মধ্যে ৫টি এসি চেয়ার কোচে রয়েছে ৫৫টি করে ২৭৫টি আসন, ৯টি শোভন চেয়ার কোচে ৬০ করে রয়েছে ৫৪০টি আসন, ২টি এসি সিট কোচে ৩৩ করে রয়েছে ৬৬টি আসন। আর প্রথম শ্রেণির একটি কোচে ৩৩টি আসন, একটি পাওয়ার কার ও দুই পাশে দুটি খাবার গাড়ি রয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow