Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০২:৫২
দেশে উদ্বৃত্ত খাদ্যশস্য ১২ লাখ টনের বেশি
নিজস্ব প্রতিবেদক
দেশে উদ্বৃত্ত খাদ্যশস্য ১২ লাখ টনের বেশি

খাদ্য প্রতিমন্ত্রী নূরুজ্জামান আহমেদ সংসদকে জানিয়েছেন, বাংলাদেশের খাদ্য চাহিদার তুলনায় দেশে খাদ্যশস্য উদ্বৃত্ত রয়েছে প্রায় ১২ দশমিক ২০ লাখ মেট্রিক টন। হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশের উদ্বৃত্ত চালের পরিমাণ ২৭ লাখ ৭০ মেট্রিক টন। পক্ষান্তরে গমের ঘাটতি প্রায় ১৫ দশমিক ৫০ লাখ মেট্রিক টন। এ ঘাটতি যোগ বিয়োগ করে বর্তমান উদ্বৃত্ত ১২ দশমিক ২০ লাখ মেট্রিক টন। সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনে গতকাল সিরাজগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য গাজী ম ম আমজাদ হোসেন মিলনের এক প্রশ্নের জবাবে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের পক্ষে তিনি এসব তথ্য জানান।

দিদারুল আলমের আরেক প্রশ্নের লিখিত জবাবে মন্ত্রী জানান, ইরি মৌসুমে সাত লাখ মেট্রিক টন ধান কেনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া সাড়ে ৭ লাখ মেট্রিক টন সিদ্ধ চাল এবং এক লাখ মেট্রিক টন আতপ চাল ক্রয়েরও লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এদিকে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ইউরোপীয় ইউনিয়নে আমরা অস্ত্র ছাড়া সব কিছুতে শুল্কমুক্ত বাণিজ্য সুবিধা পেয়ে থাকি। যুক্তরাষ্ট্র আমাদের জিএসপি সুবিধা স্থগিত করেছে। সব শর্তপূরণ করার পরও  তারা কেন বাংলাদেশকে জিএসপি সুবিধা দেন না, এখানে সেটা বলা উচিত হবে না। জিএসপি সুবিধা না পাওয়ার বিষয়টি রাজনৈতিক বলে মনে করি। জাতীয়  পার্টির সেলিম উদ্দিনের (সিলেট-৫) সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। চলতি বছর অনুষ্ঠিত হজ ব্যবস্থাপনা নিয়ে সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য রুস্তম আলী ফরাজী। এ বিষয়ে এমপি, সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সৎ কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি তদন্ত কমিটি গঠনেরও দাবি জানান তিনি।

এদিকে প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি বলেছেন, বর্তমান সরকারের সফল কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলে মধ্যপ্রাচ্যে ১০ লাখ ৭৭ হাজার অভিবাসী বাংলাদেশি শ্রমিক বৈধতা পেয়েছে। জাসদের নাজমুল হক প্রধানের লিখিত প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের সময়ে সৌদি আরবে প্রায় ৮ লাখ, মালয়েশিয়ায় ২ লাখ ৬৭ হাজার এবং ইরাকে ১০ হাজার অবৈধ অভিবাসী বাংলাদেশি শ্রমিকের বৈধতা প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বলেছেন, সম্প্রতি দেশে শিশু ও নারী হত্যার প্রবণতা বেড়েছে। এরা জঙ্গির চেয়ে ভয়ঙ্কর। বাচ্চারা স্কুলে যেতে পারছে না। হত্যাকারীদের আইনের আওতায় এনে বিচার করতে অনেক সময় লাগে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow