Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০৩:০৩
অর্থ লুটের জন্যই আলীকে খুন, গ্রেফতার ৩
নিজস্ব প্রতিবেদক
অর্থ লুটের জন্যই আলীকে খুন, গ্রেফতার ৩

অর্থ লুটের জন্যই খুন করা হয়েছে সৈয়দ গ্রুপ অব কোম্পানির জিএম আলী হোসেন মালিককে। এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে সায়েদ ফকির সাইফুল ও সুজনকে বরিশালের গৌরনদী থেকে এবং গাড়িচালক মাসুদ মল্লিককে ক্যান্টনমেন্ট থানার ইসিবি চত্বর থেকে গত সোমবার রাতে র‌্যাব গ্রেফতার করে।

এ সময় তাদের কাছ থেকে এক লাখ ২৭ হাজার টাকা ও তিনটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

এ বিষয়ে গতকাল দুপুরে মিরপুরে র‌্যাব-৪ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক খন্দকার লুত্ফুল কবির জানান, গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিরা জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। হত্যার বর্ণনাও দিয়েছে। তাদের বক্তব্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। মূলত ড্রাইভার মাসুদের পরিকল্পনায় আলী হোসেনকে খুন করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, ৯ অক্টোবর আলী হোসেন একটি ব্যাংক থেকে ১৯ লাখ টাকা তোলেন। গাড়িচালক মাসুদ তা জানত। যখনই আলী হোসেন টাকা তুলতেন তখনই তা গাড়িচালক জানত । সে দীর্ঘদিন ধরে টাকা তোলার বিষয়টি খেয়াল করে আসছিল। ৯ অক্টোবর টাকা তোলার পর নিজের গাড়িতে করেই বনানীর অফিসে যান আলী হোসেন। পরে গাড়িচালক মাসুদ ওই ভবনটির কেয়ারটেকার সাইফুল ও তার চাচাতো ভাই সুজনকে নিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার ছক তৈরি করে। সেই ছক অনুযায়ী ওইদিন বিকালে বাড়িতে থাকা অন্যান্য কর্মচারী বাবুর্চি আলমগীর হোসেন, নিরাপত্তা কর্মী জুয়েল, বাসার কুকুর পালনকারী আশিকুল ও সেলিমকে কোকের সঙ্গে তারা ঘুমের ওষুধ খাওয়ায়।

র‌্যাব-৪-এর প্রধান বলেন, ওই রাতে আলী হোসেন অফিসে থাকেননি। তিনি বাসায় চলে যান। ১১ অক্টোবর আবারও অন্যান্য স্টাফদের কোকের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাওয়ায়। রাত সাড়ে ১১টার দিকে সাইফুল ও সুজন প্রতিষ্ঠানের  জিএম আলী হোসেনের দরজা নক করে। দরজা খোলার পরই তারা ভিতরে প্রবেশ করে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow