Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২১ অক্টোবর, ২০১৬ ০২:১৪
শাহজালালে ১৯ কার্টন নিরাপত্তা যন্ত্রপাতি জব্দ
শুল্ক আইনে ব্যবস্থা
নিজস্ব প্রতিবেদক

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ১৯ কার্টনে আনা বিপুল পরিমাণ সিসিটিভি ক্যামেরা, মেটাল ডিটেক্টর ও ডিভিআর রেকর্ডার জব্দ করেছে কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতর কর্তৃপক্ষ। এর মধ্যে রয়েছে-৪৩০ পিস সিসিটিভি ক্যামেরা, ২০০ পিস হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টর ও ৫৫ পিস ডিভিআর রেকর্ডার।

গতকাল বিমানবন্দরের এয়ার ফ্রেইট শাখায় অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে আনা স্পর্শকাতর এ পণ্যগুলো আটক করা হয়।

কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান জানান, গোয়েন্দা তথ্যে ১৬ অক্টোবর পণ্যগুলো এনে ঢাকা কাস্টমস হাউসের মেইন ওয়্যারহাউস-১ এ রাখা হয়। এয়ারওয়ে বিলবিহীন ১৯ কার্টন ভর্তি এ পণ্য নজরদারিতে রাখে কাস্টমস গোয়েন্দারা। পণ্যের গায়ে কোনো ডকুমেন্ট না থাকায় গোয়েন্দাদের সন্দেহ হয়। স্ক্যানিং মেশিনে কার্টন পরীক্ষা করে দেখা যায়, ভিতরে নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি রয়েছে। পরে গতকাল দুপুরে পণ্যগুলো আটক করা হয়। পণ্যের ক্যারেট বা কার্টনের কোনোটির গায়েই এয়ারওয়ে বিল বা আমদানিকারকের পরিচয় সংবলিত কোনো ডকুমেন্ট পাওয়া যায়নি। পণ্যগুলো শুল্ক আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াই কৌশলে খালাস করে নেওয়ার উদ্দেশে ওয়্যারহাউসে রাখা হয়েছিল বলে গোয়েন্দা তথ্য পাওয়ায় এগুলো আটক করা হয়েছে।

আটক যন্ত্রপাতি নিরাপত্তা সংশ্লিষ্ট হওয়ায় ও স্পর্শকাতর বিবেচনায় বিষয়টি শুল্ক গোয়েন্দা গভীরভাবে অনুসন্ধান করবে। প্রাথমিকভাবে পণ্যের জিম্মাদার হিসেবে বাংলাদেশ বিমানের কার্গো কর্তৃপক্ষকে বিস্তারিত তথ্য জানাতে অনুরোধ করা হয়েছে। কোনো বিমান থেকে পণ্য এলে বিমান কর্তৃপক্ষ তা গ্রহণ করে ওয়্যারহাউসে সংরক্ষণ করে। এ বিষয়ে শুল্ক আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। তদন্তের মাধ্যমে পণ্যটির উৎস ও জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা হবে বলেও ড. মইনুল খান জানিয়েছেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow