Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ মার্চ, ২০১৭ ২৩:১৬
সরকারি প্রতিষ্ঠানে বিপিসির পাওনা ২২৩৪ কোটি টাকা
পরিশোধ করেনি ২০ বছর ধরে
রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম

যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড ও মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড ১৯৮৭ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডকে (পিডিবি) বাকিতে ২৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকার তেল সরবরাহ করে। কিন্তু ২০ বছর ধরে এ টাকা এখনো পরিশোধ করেনি পিডিবি কর্তৃপক্ষ।

অন্যদিকে ১৯৮০ সালে মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড বিআইডব্লিউটিসির জাহাজে ৪০ লাখ টাকা জ্বালানি সরবরাহ করে। ৩৬ বছর ধরে এ টাকাও অনাদায়ী। এ ছাড়া যমুনা অয়েল কোম্পানি ১৯৮৩-৮৪ সালে ৫৮ লাখ টাকার ১০৬৮ দশমিক ৬৫৫ মেট্রিক টন বিটুমিন সরবরাহ করে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে (চসিক)। ৩৪ বছর আগের এ পাওনা টাকা এখনো পরিশোধ করা হয়নি।

এভাবে রাষ্ট্রায়ত্ত তেল খাত নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) সরকারি ১০ প্রতিষ্ঠানের কাছে ২ হাজার ২৩৪ কোটি ৬৫ লাখ টাকা পাওনা আছে। প্রতিষ্ঠানগুলো দীর্ঘদিন ধরে এসব টাকা পরিশোধ করছে না। প্রায় প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে টাকা আদায়ের ব্যাপারে ‘প্রক্রিয়া চলমান’ আছে বলে বিপিসি মতামত দিয়েছে। সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে টাকাগুলো আদায় এখন চলমান প্রক্রিয়ার কবলে পড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সরকারি ১০ সংস্থার মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস লিমিটেডের কাছে পাওনা (ডিসেম্বর ২০১৬ পর্যন্ত) এক হাজার ৫৪১ কোটি ১৬ লাখ টাকা, বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) কাছে ৪৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা, বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) কাছে ৩৯৭ কোটি ৭৭ লাখ টাকা, পিডিবির কাছে ২৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকা, বাংলাদেশ রেলওয়ের কাছে ৮৭ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, প্রতিরক্ষা সার্ভিসেসের কাছে ১২৩ কোটি ২৭ লাখ টাকা, চট্টগ্রাম বন্দরের কাছে ১৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা, বিআইডব্লিউটিসির কাছে ৪০ লাখ টাকা, পেট্রোবাংলার কাছে দুই লাখ টাকা, চসিকের কাছে ৫৮ লাখ টাকা।

বিপিসির পরিচালক (পরিচালন ও উন্নয়ন) সৈয়দ মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক বলেন, ‘বিভিন্ন সংস্থার কাছে বিপিসির পাওনা আদায়ে আমরা প্রতিনিয়ত চিঠি দিয়ে আসছি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow