Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ মার্চ, ২০১৭ ২৩:১৯
বসুন্ধরা পোলট্রি মেলায় প্রযুক্তির সমারোহ
নিজস্ব প্রতিবেদক
বসুন্ধরা পোলট্রি মেলায় প্রযুক্তির সমারোহ
ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) গতকাল পোলট্রি শিল্প মেলায় দর্শনার্থীদের ভিড় —বাংলাদেশ প্রতিদিন

ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) চলছে পোলট্রি শিল্প মেলা। সারা দেশের পোলট্রি শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা মেলায় অংশ নিয়েছেন।

ছোট্ট পরিসরে কীভাবে পোলট্রি শিল্প গড়ে তোলার পাশাপাশি আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে উৎপাদন বাড়ানো যায় এসব তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরা হচ্ছে মেলায়। সারা দেশ থেকে এসেছেন উদ্যোক্তারা। আইসিসিবিতে বিশাল পরিসরে পোলট্রি শিল্প উদ্যোক্তাদের সমাবেশ ঘটেছে। নতুন নতুন পণ্য, ওষুধ, প্রতিষেধক ও প্রযুক্তির তথ্য জানতে এসেছেন সবাই।

মেলার আয়োজকদের সঙ্গে কথা হলে জানান, দেশের প্রাণিজ আমিষের প্রধান উৎস পোলট্রি খাত। কিন্তু দেশের চাহিদার মাত্র ২৫ ভাগ উৎপাদন হয় দেশে। বিশেষ করে ডিম ও মাংসের চাহিদার ঘাটতি রয়েই গেছে। এ ঘাটতি মেটাতে সারা দেশের    ইউনিয়ন পর্যায়ে পোলট্রি শিল্প ছড়িয়ে দিতে এই আয়োজন। মেলার আয়োজকরা জানান, পৃথিবীতে পোলট্রি জাত খাদ্যের চাহিদা ব্যাপক। বিশ্বের বৈদেশিক বাণিজ্যে বড় অংশ দখল করে আছে এই শিল্প। কিন্তু বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে। বাংলাদেশের পোলট্রি শিল্প উন্নয়নে বিশেষ প্রযুক্তি নিয়ে এই মেলার আয়োজন করা হয়েছে। মেলার দ্বিতীয় দিনে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন স্টলে পোলট্রি ফার্মের রেপ্লিকা তুলে ধরা হয়েছে। এসব রেপ্লিকায় দেখানো হয়েছে কীভাবে একই প্রকল্পে মাছ চাষ, পাখি, মুরগি, হাঁস পালন ও বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়। কম খরচে একটি পরিবার ছোট প্রকল্প করতে পারবেন। এমন তথ্য ও প্রযুক্তি সহায়তা দিয়ে বিশ্বের নামিদামি প্রতিষ্ঠানগুলো এসেছে মেলায়। মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখছেন উদ্যোক্তারা। তাদের সঙ্গে কথা বলছেন প্রকৌশলীরা। শুধু পোলট্রি শিল্প নয়, এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত খাদ্য উৎপাদনের মেশিনারিজ প্রদর্শন করা হচ্ছে। এখানে উদ্যোক্তা নিজেদের নাম-ঠিকানা দিলেই প্রকৌশলীরা সংশ্লিষ্ট এলাকায় গিয়ে স্থাপন করে দেবে কারখানা। অল্প বিনিয়োগেই হওয়া যাবে শিল্পপতি। এখানে পরিদর্শনে আসা কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এত সুন্দর একটি আয়োজন সত্যিই দেশের শিল্প উদ্যোক্তাদের জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে।

জানা গেছে, এ মেলায় ভারত, থাইল্যাড, কোরিয়া, তাইওয়ান, চীন, জার্মানি, সিঙ্গাপুর, জাপান, নেদারল্যান্ডস, স্পেন, তুরস্ক, মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়াসহ ১৮টি দেশের শতাধিক প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করছে। মেলায় প্রদর্শনী ছাড়াও কারিগরি সেশনে দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞরা অংশ নিয়ে তুলে ধরছেন পরিবেশবান্ধব কৃষিভিত্তিক শিল্পের সম্ভাবনার তথ্য। তুলে ধরা হচ্ছে আধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর নানা ধরনের শিল্প পণ্য। আধুনিক মেশিনারিজ দিয়ে পণ্য তৈরি ও প্রযুক্তিগত ধারণা দিতেই এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে। এখানে ভোক্তা থেকে শুরু করে উদ্যোক্তারাও এসেছেন। ঘুরে দেখছেন, কথা বলছেন সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে। মেলার আয়োজকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শুধু উদ্যোক্তারা নন, সাধারণ গ্রাহকদের কাছে উৎপাদিত মাংস, ডিম প্রক্রিয়াজাতকরণ,  পণ্যের মান রক্ষার কৌশল, প্যাকেটজাতসহ দেশে পরিবেশবান্ধব শিল্প গড়ে তোলার জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হচ্ছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত দর্শনার্থীরা মেলা পরিদর্শন করতে পারবেন। মেলা চলবে আজ সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow