Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শনিবার, ১১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ মার্চ, ২০১৭ ০১:১৪
হঠাৎ বৃষ্টি, পর্যটক আটক সেন্টমার্টিনে
নিজস্ব প্রতিবেদক
হঠাৎ বৃষ্টি, পর্যটক আটক সেন্টমার্টিনে

হঠাৎ ঝুম ঝুম বৃষ্টিতে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গতকাল সন্ধ্যার দৃশ্যপট পাল্টে গেছে। এখানেই শেষ নয়, কোথাও হালকা, কোথাও বজ্রসহ মাঝারি ও ভারি বৃষ্টিপাতের খবর পাওয়া গেছে।

সারা দেশে বৃষ্টিপাতের এই ধারা আগামীকাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে বলে আবহাওয়া অধিদফতর জানিয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতর বলেছে, রাজধানী ঢাকায় দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার। আর উত্তর-উত্তর-পশ্চিম দিকে গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ২৫ থেকে ৩৫ কিলোমিটার। একই সঙ্গে এই ঝড়ো আবহাওয়া সমুদ্রবন্দর ও উপকূলীয় এলাকায় আঘাত হানতে পারে। তাই চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরগুলোকে তিন নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। আবহাওয়া অধিদফতরের গতকাল সন্ধ্যার তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে কক্সবাজারে। এদিকে বৈরী আবহাওয়ার কারণে কক্সবাজারের সেন্টমার্টিন দ্বীপে বেড়াতে যাওয়া অন্তত ‘পাঁচশ’ পর্যটক আটকা পড়েছেন। গতকাল বিকালে সেন্টমার্টিনের চেয়ারম্যান নূর আহমদ এ কথা জানান। তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার বিকালে বঙ্গোপসাগরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেতের পর থেকে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন রুটে কোনো জাহাজ চলাচল করেনি। এ কারণে পাঁচ শতাধিক পর্যটক আটকা পড়েছেন।

তবে শতাধিক পর্যটক গতকাল বিচ্ছিন্নভাবে স্পিডবোট ও স্থানীয় জেলেদের মাছ ধরার ট্রলারযোগে টেকনাফ ফিরেছেন বলে দাবি করেন তিনি।

নূর আহমদ আরও বলেন, আটকা পড়া পর্যটকরা দ্বীপের বিভিন্ন হোটেল-মোটেলে নিরাপদে অবস্থান করছেন। তাদের যাতে কোনো অসুবিধা না হয় সে ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের উপ-সহকারী আবহাওয়াবিদ এ কে এম নাজমুল হক বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে সাগর উত্তাল রয়েছে। এ কারণে বঙ্গোপসাগর ও উপকূলবর্তী এলাকায় ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে এবং নৌযানগুলোকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow