Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : সোমবার, ১৩ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা
আপলোড : ১২ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৪১

হোটেলে হেনস্তার শিকার মার্কিন নারী সাংবাদিক

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

হোটেলে হেনস্তার শিকার মার্কিন নারী সাংবাদিক

কুষ্টিয়ায় একটি আবাসিক হোটেলে হেনস্তার শিকার হয়েছেন এক মার্কিন নারী সাংবাদিক। গভীর রাতে হোটেল মালিক মদ্যপ অবস্থায় কক্ষের ভিতরে প্রবেশ করার চেষ্টা ও অশ্লীল ভাষা ব্যবহার করেন। ভীত হয়ে ওই নারী সাংবাদিক তার পরিচিত এক ব্যক্তিকে ফোন দিলে তিনি এসে তাকে উদ্ধার করেন। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ঝড় উঠেছে। ওই নারী গতকাল এ ব্যাপারে কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন। জানা গেছে, গত ৫ মার্চ শহরের থানাপাড়ায় অভিজাত আবাসিক হোটেল ‘খেয়ার’ একটি কক্ষ ভাড়া নেন রাত যাপনের জন্য। গভীর রাতে (আনুমানিক ১টা) হোটেলের মালিক বিশ্বনাথ সাহা বিশু মদ্যপ অবস্থায় ওই নারীর কক্ষে গিয়ে দরজা খোলার জন্য নক করেন, একই সঙ্গে অশ্লীল শব্দ ব্যবহার করেন। পরে ওই নারী দরজা না খোলায় বিশু হোটেলের রেজিস্টার থেকে মোবাইল নম্বর নিয়ে বারবার ফোন দিয়ে দরজা খোলার জন্য বলেন। এক পর্যায়ে তিনি হোটেল স্টাফদের কাছে উচ্চৈঃস্বরে কক্ষের ডুপ্লিকেট চাবি চান। এ ঘটনায় ভীত হয়ে নারী সাংবাদিক তার পরিচিত কুষ্টিয়ার এক পুরুষ বন্ধুর মোবাইলে ফোন দেন। রাতে তিনি হোটেলে এসে তাকে উদ্ধার করেন। ওই নারী অভিযোগে জানান, পরে তার বন্ধু তাকে নিয়ে শহরের আরেকটি হোটেলে গেলে তারা নারী বলে ওই সাংবাদিককে হোটেলে থাকতে দিতে রাজি হননি। তিনি থাকার জন্য কোনো হোটেল পাননি। পরে ভোর সাড়ে ৪টার দিকে শহরের উপজেলা রোডে একটি এনজিওর রেস্ট হাউসে ওঠেন। পরে সেখানে দুই দিন থেকে ঢাকা চলে যান।

এ ব্যাপারে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এসএম মেহেদী হাসান জানান, ‘আমরা মেইলে একটি অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি।’ জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান জানান, আমি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ সুপারের সঙ্গে কথা হয়েছে। এ ব্যাপারে সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

খেয়া হোটেলের ম্যানেজার সাইদুল বারী টুটুল প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে বলেন, ‘ওই দিন একটি অনুষ্ঠান নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম। কী হয়েছিল ঠিক বলতে পারব না। তবে আপনি সরাসরি আমার সঙ্গে দেখা করেন, সাক্ষাতে কথা বলব।’

অভিযোগের ব্যাপারে হোটেল মালিক বিশ্বনাথ সাহা বিশু বলেন, ‘বিষয়টি আমাকে চরমভাবে বিচলিত করেছে। এ বয়সে এসে আমাকে এমন একটা কথা শুনতে হচ্ছে যা লজ্জাজনক। নিজের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করে জানান, যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আপনারা ভালোভাবে খোঁজ নিয়ে তারপর সংবাদ পরিবেশন করেন। আমাকে হেয় করতে ও ব্যবসার ক্ষতি করতে একটি চক্র এ কাজ করছে বলে আমার প্রতীয়মান হয়।’


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর