Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ এপ্রিল, ২০১৭ ২৩:২৩
৭৭ শতাংশ নারীই ফেসবুকে সাইবার অপরাধের শিকার
ডিইউটিএসের তথ্য
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক

ইন্টারনেট ব্যবহারকারী মেয়েদের মধ্যে ৭৭ শতাংশই ফেসবুককেন্দ্রিক সাইবার অপরাধের শিকার। পাসওয়ার্ড হ্যাকিংয়ের শিকার ১২ শতাংশ।

৪ শতাংশ ইমেইল ও এসএমএস হুমকি, ২ শতাংশ সাইবার পর্নোগ্রাফি এবং ৫ শতাংশ আইডেন্টিটি থেফটের শিকার।   ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) মেয়েদের পাঁচটি হলের প্রায় দুই হাজার ১০০ ছাত্রীর মধ্যে জরিপ চালিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি সোসাইটি (ডিইউটিএস) এ তথ্য পেয়েছে। গত বছর জুনে এ জরিপভিত্তিক গবেষণাটি করা হয়। এ বিষয়ে গতকাল ঢাবির নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ‘সাইবার সিকিউরিটি অ্যাওয়ারনেস ফর উইমেন এমপাওয়ারমেন্ট’ শীর্ষক এক কর্মশালার আয়োজন করা হয়। এ আয়োজন করে সরকারের তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন কন্ট্রোলার অব সার্টিফায়িং অথরিটিজ (সিসিএ)। সকাল ৯টায় কর্মশালার উদ্বোধন করেন তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। অনুষ্ঠানে সিসিএর নিয়ন্ত্রক আবুল মনসুর মোহাম্মদ সারফ উদ্দীনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাবি উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক এস এম ওয়াহিদুজ্জামান প্রমুখ।

উদ্বোধনী বক্তৃতায় জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেন, ইন্টারনেট ব্যবহারে নিজের প্রয়োজনেই সতর্ক থাকতে হবে। মানুষের পাঁচটি মৌলিক চাহিদার পরে ষষ্ঠ অধিকার হলো ইন্টারনেট ব্যবহারের অধিকার। পানি খাওয়ার সময় যেমন ফুটিয়ে খেতে হয় তেমনি ইন্টারনেট ব্যবহারের আগে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। ইন্টারনেট ব্যবহারের ঝুঁকি এড়াতে এন্টি ভাইরাস ব্যবহার, সিস্টেম আপডেট, শক্তিশালী পাসওয়ার্ড দেওয়া, ডাউনলোডের আগে অ্যাপস ভেরিফাই করতে হবে।

কর্মশালায় সাইবার বিশেষজ্ঞরা ছাত্রীদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। এ সময় বিভিন্ন সময়ে ঘটা সাইবার অপরাধের বর্ণনা দিয়ে এ সম্পর্কে কীভাবে সতর্ক হওয়া যায় তারও শিক্ষা দেওয়া হয়। বিশেষজ্ঞরা বলেন, যে ছবি বা ভিডিও বন্ধু ও পরিবারকে দেখানো যায় না, তা না ধারণ করাই ভালো।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow