Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৮ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১৭ জুলাই, ২০১৭ ২৩:০৫
বাধার মুখে বাজেট বাস্তবায়ন
সংশোধনের ঘোষণা অর্থমন্ত্রীর
মানিক মুনতাসির

অর্থবছরের প্রথম মাস হিসেবে জুলাই মাসে যেখানে নতুন নতুন উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু করার কথা সেখানে উন্নয়ন প্রকল্পের বরাদ্দ কাটছাঁটের কথা ভাবছে অর্থবিভাগ। ফলে ভুল নীতি আর প্রশাসনিক অদক্ষতার কারণে অর্থবছরের শুরুতেই বাধার মুখে পড়েছে সরকারের বাজেট বাস্তবায়ন কার্যক্রম। এজন্য আগাম বাজেট সংশোধনের ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেছেন, চলতি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেটে বড় ধরনের সংস্কার আনা হবে। ভ্যাট আইন-২০১২ দুই বছরের জন্য স্থগিত করায় বিশাল আকারের রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য অর্জন কঠিন হবে। যার প্রভাব পড়বে উন্নয়ন র্কমকাণ্ডে। এজন্য বাজেট বাস্তবায়ন করা খুব একটা সহজ হবে না। ফলে নতুন বাজেটে নেওয়া উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর বরাদ্দে হেরফের করার কথা ভাবা হচ্ছে। এমনকি অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পকে এডিপির তালিকা থেকে বাদও দেওয়া হতে পারে বলে জানা গেছে। 

অর্থবিভাগের একটি সূত্র জানায়, নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হলে জনভোগান্তি বেড়ে যেতে পারে। এমন ভুল নীতি বাজেট পাসের আগেই বুঝতে পারায় সরকার সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়ায়। কিন্তু ভ্যাট আইন স্থগিতের সিদ্ধান্তই এখন বাজেট বাস্তবায়নে বাধার সৃষ্টি করছে। অন্যদিকে দীর্ঘদিনের প্রশাসনিক অদক্ষতার কারণে অর্থবছরের শুরুতেই বাজেট বাস্তবায়ন নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন অর্থমন্ত্রী। এজন্য আয়-ব্যয়ের প্রাক্কলন নতুন করে ঠিক করতে পরিকল্পনার কথা ভাবছেন তিনি। ইতিমধ্যে এ নিয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এবং পরিকল্পনা কমিশনের সঙ্গে কথাও বলেছেন তিনি। এজন্য সংশোধিত বাজেটের বিষয়ে জাতীয় সংসদে বিশাল পরিকল্পনা তুলে ধরার চিন্তা-ভাবনার কথা জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। এদিকে সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে গত ৮ বছরের সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে এসেছে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) বাস্তবায়ন। এ ধারা ভেঙে সদ্য শুরু হওয়া অর্থবছরে নতুন রেকর্ড গড়তে চান অর্থমন্ত্রী। এজন্য অর্থবছরের শুরু থেকেই বাজেট বাস্তবায়নের গতি বাড়ানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে। আর্থিক চাহিদা মেটাতে প্রয়োজনে বৈদেশিক সাহায্যের বিশাল যে প্রাক্কলন করা হয়েছে, তা কিভাবে নিশ্চিত করা যায়, সে ব্যাপারেও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগকে নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। এমন কি পাইপলাইনে থাকা অব্যবহূত বৈদেশিক সাহায্যের ব্যবহার কিভাবে বাড়ানো যায় সে ব্যাপারেও নতুন করে পরিকল্পনা নেওয়া হবে। তবে নতুন বাজেটে রেকর্ড পরিমাণ ৭ বিলিয়ন ডলার বৈদেশিক সহায়তার যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে তা বাস্তবায়ন করা খবই সম্ভব বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow