Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:০৪
অভিযান এড়াতে ‘ইউটার্ন কৌশল’
রেজা মুজাম্মেল, চট্টগ্রাম
bd-pratidin

চট্টগ্রাম নগরের চকবাজার থেকে ছাড়া অটোটেম্পোগুলো আগ্রাবাদ বারিক বিল্ডিং মোড় পর্যন্ত যাওয়ার কথা। কিন্তু টেম্পোগুলো নগরের লালখান বাজার পর্যন্ত গিয়ে ইউটার্ন দিয়ে ঘুরিয়ে দিচ্ছে। টাইগার পাস মোড়ে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) চট্টগ্রাম কার্যালয়ের ভ্রাম্যমাণ আদালত চলায় তারা এ কাজটি করছে। অন্যদিকে, নগরের ২ নম্বর গেট থেকে ছাড়া রাইডারগুলো অক্সিজেন মোড় পর্যন্ত যাওয়ার কথা কিন্তু তারা অক্সিজেন পর্যন্ত না গিয়ে ক্যান্টনমেন্ট মোড় পর্যন্ত গিয়ে ইউটার্ন করে। এভাবে বিআরটিএর অভিযান চলাকালে শাস্তি এড়াতে নির্ধারিত গন্তব্যে না গিয়ে আগেই ইউটার্ন এর কৌশল নিয়েছে চালকরা। নির্ধারিত গন্তব্যে না গিয়ে মাঝ পথে নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে যাত্রীদের। ফলে যাত্রীরা পড়ছেন অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ভোগে। নষ্ট হচ্ছে সময় ও অর্থ। ভ্রাম্যমাণ আদালত এড়াতে তারা এমন কৌশলের আশ্রয় নিয়েছে বলে জানা যায়। যাত্রীদের অভিযোগ, নির্ধারিত গন্তব্যে যাওয়ার জন্য গাড়িতে উঠলেও মাঝপথে নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে ফিটনেসবিহীন গাড়ি এবং লাইসেন্সবিহীন চালকরাই এভাবে যাত্রী নামিয়ে দিচ্ছে। এটা যাত্রী হয়রানি এবং ভোগান্তির মতো। বিআরটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম মনজুরুল হক বলেন, ‘সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে অবৈধ যানবাহন ও চালকের বিরুদ্ধে অভিযান চলছে। কিন্তু লাইসেন্সবিহীন চালক এবং ফিটনেসবিহীন গাড়িগুলো মাঝ পথ থেকে ইউটার্ন করার অভিযোগটি আমাদের কাছে আসেনি। কোনো যাত্রী যদি সুনির্দিষ্টভাবে অভিযোগ দেন, তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা অবশ্যই নেওয়া হবে। কারণ নির্দিষ্ট রুটের শেষ পর্যন্ত গাড়িকে যেতে হবে।’

বিআরটিএ সূত্রে জানা যায়, সড়কে শৃঙ্খলা আনতে গত ৩০ আগস্ট থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা শুরু করেছে। পরিচালিত অভিযানে গত রবিবার পর্যন্ত ৬১৭টি মামলা দায়ের, ১১ লাখ ৭০ হাজার ৭০০ টাকা জরিমানা আদায়, ৯৫টি গাড়ি ডাম্পিং, প্রায় একশত গাড়ির ডকুমেন্ট জব্দ এবং সাতজনকে এক মাস করে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow