Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : সোমবার, ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২০ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:০১
খুলনায় ইজিবাইকের লাইসেন্স রাজশাহীর আদলে
নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনা মহানগরীতে যানজট নিয়ন্ত্রণে অবশেষে ইজিবাইকের লাইসেন্স দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিটি করপোরেশন। এক্ষেত্রে শুধু মহানগরীতে বসবাসরত চালকদের লাইসেন্স দেওয়া হবে। ৫০০ টাকা দিয়ে সিটি করপোরেশন থেকে আবেদন ফরম সংগ্রহ করতে হবে। ছবি ও প্রয়োজনীয় তথ্যাদি দিয়ে ফরম পূরণ করে তা জমা দিতে হবে। লাইসেন্স ছাড়া কোনো ইজিবাইক মহানগরীতে চলাচল করতে পারবে না। খুলনা সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক বলেন, যানজটমুক্ত পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে অবৈধ যানবাহনকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মতো আমরা ইজিবাইকের লাইসেন্স প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রতিটি লাইসেন্স ফি হবে ১০ হাজার টাকা।

প্রসঙ্গত, অবৈধ ইজিবাইকের যানজটে প্রতিনিয়ত নাকাল হচ্ছেন নগরবাসী। এসবের চালকদেও বৈধ লাইসেন্স বা ন্যূনতম ট্রাফিক আইনের জ্ঞান নেই। এছাড়া ইজিবাইকের লাইসেন্স কে দেবে- বিআরটিএ নাকি সিটি করপোরেশন, এ নিয়েও রয়েছে বিতর্ক। ২০১১ সালে সিটি করপোরেশন ১ হাজার ৮০০ ইজিবাইকের লাইসেন্স দিলেও মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে পরবর্তীতে সেগুলোর নবায়ন বন্ধ ও নতুন লাইসেন্স না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এদিকে রাজশাহী সিটি করপোরেশন ইজিবাইককে ‘ব্যাটারিচালিত অযান্ত্রিক যানবাহন’ দাবি করে লাইসেন্স দিয়েছে। একইসঙ্গে তারা যানজট নিয়ন্ত্রণে দুই আসনের ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধ ও জোড়-বিজোড় নম্বরধারী ইজিবাইককে আলাদা দিনে চলাচলের ব্যবস্থা করেছে। খুলনা সিটি মেয়র বলেন, রাজশাহীর মতো আমরা ইজিবাইকের লাইসেন্স প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রশাসন বিভিন্ন সময়ে শহরের মধ্যে ৫ হাজার ইজিবাইক চলাচলের সিদ্ধান্ত নেয়। এখন বাস্তব অবস্থা বিবেচনা করে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তিনি উল্লেখ করেন, খুলনায় অধিকাংশ ইজিবাইক শহরের বাইরে থেকে আসে। এরই মধ্যে বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে বাইরের ইজিবাইক শহরে প্রবেশ বন্ধ করা হয়েছে। প্রশাসন সচেতন থাকলে যানজট নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow