Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা
আপলোড : ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০২:১৯

ছাত্র সংসদে আগ্রহ শেকৃবিতে

ওলী আহম্মেদ, শেকৃবি

ছাত্র সংসদে আগ্রহ শেকৃবিতে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু নির্বাচনের দিকে এখন সবার চোখ। হয়তো শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের পাশাপাশি দেশের সংকটময় মুহূর্তগুলোয় এগিয়ে আসবে এ ডাকসু। এ অবস্থায় রাজধানীর প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়েও (শেকৃবি) কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নিয়ে আগ্রহ দেখাচ্ছে সাধারণ শিক্ষার্থী ও ছাত্র সংগঠনগুলো।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ২০০১ সালে বাংলাদেশ অ্যাগ্রিকালচারাল ইনস্টিটিউট থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরের আগে ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৯ সাল পর্যন্ত প্রতি বছরই কেন্দ্রীয়       ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ২০০১ সালে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে হয়নি কোনো ছাত্র সংসদ নির্বাচন। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয় আইনেও কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের কোনো অস্তিত্ব নেই। অথচ ‘সেন্ট্রাল ছাত্র ইউনিয়ন’ খাতের নাম করে প্রতি সেমিস্টারে একেকজন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে চাঁদা আদায় করা হয় ১০০ টাকা। বিশ্ববিদ্যালয় কোষাগারে জমা হওয়া এ অর্থের আয়-ব্যয়ের হিসাব দিতেও রাজি নয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এমন পরিস্থিতিতে ছাত্র সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রয়োজনীয় কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি করছে ছাত্র সংগঠনগুলো। যোগাযোগ করা হলে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মুনতাকিম উদ্দৌলা মাসুম বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় আইনে না থাকা সত্ত্বেও ছাত্র সংসদের নামে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা আদায় করা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক দুর্নীতির একটি অংশ। প্রশাসনের উচিত এ খাতের আয়-ব্যয়ের সুষ্ঠু হিসাব শিক্ষার্থীদের সামনে তুলে ধরা। সেই সঙ্গে এ বিষয়ে নীতিমালা প্রণয়ন করে দ্রুত নির্বাচন আয়োজনের দাবি জানাচ্ছি।’

শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় আইনে ছাত্র সংসদের বিষয়টি উল্লেখ আছে কি না এ বিষয়ে আমি নিশ্চিত নই। তবে আইনে না থাকলে প্রয়োজনীয় নীতিমালা প্রণয়ন করে নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি করা প্রশাসনের দায়িত্ব। আমরা এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলব।’ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিম বলেন, ‘এটা সঠিক যে, বিশ্ববিদ্যালয় আইনে শেকৃবি  কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের কথা উল্লেখ নেই। তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ছাত্র সংসদ নিয়ে খুবই ইতিবাচক। উপাচার্য আমাদের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদবিষয়ক আইনের কপি সংগ্রহের জন্য মৌখিক নির্দেশ দিয়েছেন। এসব সংগ্রহের পর সিন্ডিকেট সভায় প্রয়োজনীয় নীতিমালা পাস করা হবে।’ এ খাতে আদায় করা টাকার বিষয়ে তিনি বলেন, এ খাতের টাকা তহবিলে জমা আছে। ছাত্র সংসদ নির্বাচন হলে এ টাকা নির্দিষ্ট খাতেই ব্যয় করা হবে।

 


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর