Bangladesh Pratidin

ফোকাস

  • চাটাইয়ে মুড়িয়ে প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান!
  • কেরানীগঞ্জে বাচ্চু হত্যায় ৩ জনের ফাঁসি, ৭ জনের যাবজ্জীবন
  • ৩ মামলায় জামিন চেয়ে হাইকোর্টে খালেদার আবেদন
  • হালদা নদীর পাড়ের অবৈধ স্থাপনা ভাঙার নির্দেশ
  • আফগানিস্তানের বিপক্ষে টাইগারদের টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণা
  • কাদেরের বক্তব্যে একতরফা নির্বাচনের ইঙ্গিত: রিজভী
  • কলারোয়া সীমান্তে স্বামী-স্ত্রীসহ ৩ বাংলাদেশিকে ফেরত দিল বিএসএফ
  • বিএনপি নির্বাচনে না এলেও গণতন্ত্র অব্যাহত থাকবে: কাদের
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৮ জুন, ২০১৬ ২৩:২৭
এক পলক

ভুয়া ডাক্তার গ্রেফতার জেল, হাসপাতাল সিল

তিনি একাই ডাক্তার, আয়া ও নার্স। তার কোনো সহযোগী লাগে না। ২০০৯ সাল থেকে মহিলাদের সিজারিয়ান অপারেশনসহ নানা চিকিৎসা করে আসছেন। নিজেই রোগীদের অজ্ঞান করে অপারেশন করে থাকেন। নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের গোদনাইল চৌধুরীবাড়ী বাসস্ট্যান্ডে জনস্বাস্থ্য জেনারেল হাসপাতালে গতকাল দুপুরে হানিফা আক্তার (১৭) নামে কিশোরীর এপেন্টিসাইডের অপারেশন করছিলেন ভুয়া ডাক্তার মোবারক ইসলাম। হঠাৎ সেখানে হাজির হন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় মোবারক ইসলামের অফিসে তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ বাংলাদেশ, ভারত ও চায়নার বিভিন্ন বিশ্ব বিদ্যালয়ের জাল সনদপত্র ও সনদপত্র তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করেন। ভুয়া ডাক্তার মোবারক ইসলামকে দুই বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেন। এ সময় জনস্বাস্থ্য জেনারেল হাসপাতালটিকে সিলগালা করে দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

—সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি

মরা মুরগি রাখায় জরিমানা

গাজীপুর শহরের জয়দেবপুর বাজারে মরা মুরগি রাখার দায়ে ছয়জনকে ৫৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জেসমিন নাহার গতকাল এ আদালত পরিচালনা করেন। গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট রাহেনুল ইসলাম জানান, জয়দেবপুর বাজারে বুধবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় মরা মুরগি রাখার অপরাধে ভোক্তা অধিকার আইনে ব্যবসায়ী মাসুদকে ৫০ হাজার এবং আরও পাঁচ ব্যবসায়ীকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

—গাজীপুর প্রতিনিধি

দলিল লেখকের মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জ সদর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সাব রেজিস্ট্রারের দেওয়া মানসিক চাপের কারণে এক দলিল লেখকের মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের দলিল লেখকরা জানান, সোমবার দুপুরে জমি ক্রেতা-বিক্রেতা নিয়ে জমি রেজিস্ট্রি করতে যান দলিল লেখক আব্দুল জলিল। সাব রেজিস্ট্রি অফিসের কেরানী মুসলেম দলিল ঠিক আছে বলে দেওয়ার পর নকশায় ভুল রয়েছে উল্লেখ করে সাব রেজিস্ট্রার হাফিজা হাকিম তাকে বসিয়ে রেখে নানা তালবাহানা করেন। এ সময় তার সঙ্গে সাব রেজিস্ট্রার ভালো ব্যবহার করেননি বলে উল্লেখ করেন দলিল লেখকরা। এতে দলিল লেখক আব্দুল জলিল মানসিক চাপে পড়েন। ওই চাপ সইতে না পেরে পর দিন ফজরের নামাজের সময় মসজিদেই তার মৃত্যু হয়। জলিল কয়েক বছর ধরে হার্ট ও উচ্চ রক্তচাপ জনিত অসুখে ভুগছিলেন। অভিযুক্ত সাব রেজিস্ট্রার জানান, জলিল অসুস্থ থাকার ব্যাপারটি তার জানা ছিল না।

—সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি

এই পাতার আরো খবর
up-arrow