Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ৯ জুন, ২০১৬ ২৩:০০
‘নৌকা’র জন্য ডজন প্রার্থীর ব্যাকুলতা
ময়মনসিংহ-৩ উপ-নির্বাচন
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ক্যাপ্টেন (অব.) মজিবুর রহমান ফকিরের মৃত্যুর পর জাতীয় সংসদের গৌরীপুর আসনে (ময়মনসিংহ-৩) উপনির্বাচনের হাওয়া বইছে। মাঠ কব্জা করতে সচেষ্ট ডজনখানেক প্রার্থী।  তফসিল অনুযায়ী, আগামী ১৮ জুলাই এ আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্র ও জেলার অনুকম্পা পেতে সম্ভাব্য প্রার্থীদের ধন্য হয়ে ‘মনোনীত’ প্রার্থী হওয়ার জন্য চলছে জোর তদবির। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে প্রচার-প্রচারণা। এই প্রার্থীদের বিশ্বাস নৌকা প্রতীক মিললেই হয়ে যাবেন সংসদ সদস্য। কারণ নির্বাচনের বাইরে থাকছে বিএনপি। জানা যায়, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ২ মে মারা যান আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি মজিবুর রহমান ফকির। তিনবারের এমপি মজিবুর রহমান ফকির কোনো রাজনৈতিক উত্তরসূরি রেখে যাননি। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে স্থানীয় শীর্ষ আওয়ামী লীগ নেতা থেকে জেলা ও কেন্দ্রীয় পর্যায়ের অনেক নেতাই চাইছেন এ আসনে বসতে। সূত্রমতে, মনোনয়ন প্রত্যাশায় মাঠ চষছেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার নাজিম উদ্দিন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শরীফ হাসান অনু, স্বাচিপের মহাসচিব ডা. এম এ আজিজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক কৃষিবিদ ড. সামিউল আলম লিটন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আহাম্মদ খান পাঠান সেলিভী, বর্তমান মেয়র রফিকুল ইসলাম, সাবেক মেয়র শফিকুল ইসলাম হবি, মজিবুর রহমান ফকিরের ছোট মেয়ে সিনথিয়া রাশেদ পিংকী, অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন, কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য আবু কাউছার চৌধুরী রন্টি ও সাবেক ছাত্রনেতা ফাইজুল হক শেখর। তবে ক্যাপ্টেন (অব.) মজিবকে গত নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে গলদঘর্ম করা বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সহ-সাধারণ সম্পাদক নাজনীন আলম রয়েছেন বেশ আলোচনায়। সাধারণ মানুষ ও দলীয় বিশাল ভোটব্যাংক নিয়ে এবার তিনি নৌকা প্রতীক অর্জনের জন্য মরিয়া। তাই তিনি ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। অনুরাগীদের ধারণা, নাজনীন অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন। এদিকে শরীফ হাসান অনুও রয়েছেন ফ্যাক্টর হয়ে।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের শাসনামলে শক্ত হাতে দলের রাজনীতি ধরে রেখেছিলেন তিনি। ওয়ান-ইলেভেনেও দলের সংকটময় মুহূর্তে রাজপথে সক্রিয় ছিলেন তিনি। আর সবচেয়ে তরুণ প্রার্থী হয়ে ইতিমধ্যে বেশ আলোচনায় রয়েছেন কেন্দ্রীয় যুবলীগ সদস্য আবু কাউছার চৌধুরী রন্টি।




up-arrow