Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১ অক্টোবর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১১ জুন, ২০১৬ ২২:৫২
স্কুলছাত্রী দুই বোনকে ধর্ষণ ভিডিও ইন্টারনেটে
ফরিদপুর প্রতিনিধি

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলার পদ্মা নদীবেষ্টিত চরহরিরামপুর ইউনিয়নের চরসালেপুর গ্রামের দুই স্কুলছাত্রী মামাতো-ফুফাতো বোনকে ধর্ষণ করে ধর্ষণের সেই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দিয়েছে ধর্ষকরা। সেই ভিডিওটি ফেসবুকের মাধ্যমে এখন সবার হাতে হাতে। ভিডিওটি প্রকাশের পর ওই দুই ছাত্রীর পরিবারে নেমে এসেছে চরম বিপর্যয়। ধর্ষণের ঘটনাটি কয়েক মাস আগের হলেও ধর্ষকরা ধর্ষিতাদের পরিবারের কাছে ১ লাখ টাকা চায়। টাকা না দিলে ভিডিওটি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। নির্যাতিত দুই স্কুলছাত্রীর পরিবার টাকা না দিলে কয়েক দিন আগে ভিডিওটি ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়া হয়। এদিকে, এ ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর তোলপাড় চলছে চরভদ্রাসন উপজেলাজুড়ে। দোষীদের শাস্তি দাবিতে ফুঁসে উঠেছে স্থানীয়রা। স্থানীয় গ্রামবাসী ও নির্যাতিত স্কুলছাত্রীর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ১৪ এপ্রিল পয়লা বৈশাখের দিন মামাতো-ফুফাতো দুই বোন চরসালেপুর স্কুলের নবম ও অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী তাদের এক আত্মীয়বাড়িতে বেড়াতে যায়। এ সময় এলাকার উজ্জ্বল খান, শুকুর আলী সিকদার, সিরাজ শেক, ইলিয়াস বেপারি ও শফি মোল্যা তাদের পিছু নেয়। একপর্যায়ে তারা দুই স্কুলছাত্রীকে জোরপূর্বক মোটরসাইকেলে তুলে চরসালেপুর গ্রামের আশ্রয় কেন্দ্রের পাশের একটি ভুট্টা খেতে নিয়ে যায়। পরে বখাটেরা দুই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের সময় তারা তা মোবাইলে ভিডিও করে। এ নিয়ে বাড়াবাড়ি করলে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। এ ঘটনার পর নির্যাতিত স্কুলছাত্রীদ্বয়ের অভিভাবকরা ধর্ষকদের পরিবারকে বিষয়টি জানালে তারা বিষয়টি নিয়ে চুপ না থাকলে ফল ভালো হবে না বলে শাসায়। ধর্ষকরা প্রভাবশালী বিধায় এবং মানসম্মানের ভয়ে এ নিয়ে তেমন একটা উচ্চবাচ্য করতে সাহস পায়নি দুই স্কুলছাত্রীর দরিদ্র পরিবার। এদিকে, ধর্ষকরা এ ঘটনার পর থেমে থাকেনি। তারা ফের উত্ত্যক্ত করতে থাকে ওই দুই স্কুলছাত্রীকে। স্কুলে যাওয়া-আসার পথে কুপ্রস্তাবসহ নানা অশ্লীল ইঙ্গিত করে। ফলে তাদের স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। মাসখানেক আগে ধর্ষকরা নির্যাতিত স্কুলছাত্রীদ্বয়ের পিতার কাছে ১ লাখ টাকা দাবি করে। টাকা না দিলে ধর্ষণের ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। টাকা না দেওয়ায় ধর্ষকরা এক সপ্তাহ আগে ইন্টারনেটে পাঁচ খণ্ডের ভিডিওটি ছেড়ে দেয়। ভিডিওটি ফেসবুকের মাধ্যমে জানাজানি হলে তোলপাড় শুরু হয়।




up-arrow