Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ২৪ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৩ জুলাই, ২০১৬ ২৩:০৬
রাঙামাটি-বান্দরবান সড়ক যোগাযোগ ৪ মাস বিচ্ছিন্ন
রাঙামাটি প্রতিনিধি

ভেঙেপড়া সেতু মেরামত না হওয়ায় চার মাস ধরে বিচ্ছিন্ন রাঙামাটি-বড়ইছড়ি-রাজস্থলী-বান্দরবান সড়ক যোগাযোগ। দীর্ঘ সময় সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ থাকায় চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এই সড়ক ব্যবহারকারী সাধরাণ মানুষ। স্থানীয়দের পক্ষ থেকে সেতুটি পুনঃনির্মাণের দাবি উঠলেও কার্যকর পদক্ষেপ নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। জানা যায়, ১৪ এপ্রিল পণ্যবাহী ট্রাক রাঙামাটি থেকে রাজস্থলী যাওয়ার সময় রাঙামাটি-বান্দরবান সড়কের ঘাগড়ার তালুকদারপাড়া বেইলি সেতুটি ভেঙে দেবে যায়। এতে কোনো প্রাণহানি না ঘটলেও তারপর থেকে পাহাড়ি অঞ্চলের মানুষের চরম দুর্ভোগ হচ্ছে। এ অবস্থায় চার মাস পার হলেও সেতুটি মেরামতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পদক্ষেপ নেননি। ফলে রাঙামাটি থেকে বান্দরবান, বড়ইছড়ি, রাজস্থলী, কাপ্তাই এবং বান্দরবান ও রাঙামাটির যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। সবচেয়ে বিপদে পড়েছেন কৃষক ও শিক্ষার্থীরা। রোগী নিয়ে পড়তে হচ্ছে বেকায়দায়। রাঙামাটি সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্র জানায়, রাঙামাটি-ঘাগড়া-বড়ইছড়ি-কাপ্তাই-চন্দ্রঘোনা-রাজস্থলী-বাঙালহালিয়া ভায়া বান্দরবান সড়কটির নির্মাণ, মেরামত ও সংস্কারের দায়িত্ব সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়নের (ইসিবি)। তাই সেতুটি পুনঃনির্মাণের কাজ করেনি সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এ বিষয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন ব্যাটালিয়ন-১৯ (ইসিবি)-এর কমান্ডিং কর্মকর্তা লে. কর্নেল মো. তানভির হোসেন জানান, ভেঙে পড়া সেতুটি মেরামতের উপযোগী নেই। বিকল্প ব্রিজ নির্মাণ করতে হবে। এর জন্য তাদের কাছে পর্যাপ্ত তহবিল নেই। কিন্তু সড়ক বিভাগ চাইলে অল্প সময়ের মধ্যে কাজটি করতে পারে। তার জন্য লিখিতভাবে সড়ক ও জনপথ বিভাগকে জানানো হয়েছে। তিনি আরও বলেন, রাঙামাটির কিছু সড়ক মেরামত ও পুনঃনির্মাণের দায়িত্ব তাদের কাছে ন্যস্ত করা হয়েছিল। কিন্তু সে প্রকল্প ২০১৫ সালের জুন মাসেই শেষ হয়েছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আতিক উল্লাহ ভূইয়া জানান, রাঙামাটি শহরের ১০ কি.মি. কাউখালী সংযোগ সড়ক ও বিএনএল সড়ক ছাড়া বাকি সড়কগুলো ইসিবির হাতে ন্যস্ত ছিল। তাই তারা বান্দরবান-কাপ্তাই-রাঙামাটি-বড়ইছড়ি-রাজস্থলী সড়কের কাজটি করতে পারেননি। সমপ্রতি ওই সড়ক সংস্কারে জন্য মন্ত্রণালয় থেকে তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। শীঘ্রই এ বিষয়ে টেন্ডার আহ্বান করা হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow