Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০১:০৮
প্রতারণার ফাঁদে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান
ফরিদপুর প্রতিনিধি

ফরিদপুরে জমি কিনে প্রতারণার ফাঁদে পড়েছেন এক মুক্তিযোদ্ধার ছেলে। বিভিন্ন জনের কাছ থেকে ঋণ, জায়গা-জমি বন্ধক রেখে এবং গাছ বিক্রির কয়েক লাখ টাকা জমিমালিককে দেওয়ার পরও নানা টালবাহানা করে জমিটি বুঝিয়ে দিচ্ছেন না।

একদিকে জমি বিক্রেতার হুমকি, অন্যদিকে পাওনাদারের তাগাদায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ভুক্তভোগী। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ফরিদপুরের প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মালেকের ছেলে আক্তার হোসেন গং সম্প্রতি শহরের ১১৪ নম্বর টেপাখোলা মৌজার সাবেক ৬৫ নম্বর দাগের পৌনে আট শতাংশ জমি কিনেন জনৈক বাসুদেব বিশ্বাসের কাছ থেকে। ওই জমির দখল নিয়ে সেখানে বসবাস করে আসছেন আক্তার ও তার পরিবার। পরবর্তীতে একই দাগের চার দশমিক ২৫ শতাংশ জমি আক্তারের কাছে বিক্রি করেন জয়দেব বিশ্বাস। জমি বিক্রির ১৯ লাখ টাকা বুঝে নেওয়ার পর রেজিস্ট্রি অফিসে দলিল সম্পাদন হয়। পরে জয়দেব তার ছবি আনার কথা বলে রেজিস্ট্রি অফিস থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জয়দেব ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী টাকা নিয়ে গাঢাকা দিয়েছেন। এ নিয়ে একাধিকবার শালিস বৈঠকে স্বজনরা জমি বুঝিয়ে দেওয়ার কথা বললেও টালবাহানা করতে থাকেন। আক্তার হোসেনের অভিযোগ, কয়েকদিন ধরে জয়দেবের স্বজনরা তাকে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছেন। তারা আমার ও আমার স্ত্রীর উপর হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় অভিযোগও করা হয়েছে।

ফরিদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর মাহফুজুর রহমান মামুন বলেন, ‘আক্তার হোসেন গং জয়দেবের কাছ থেকে জমি কিনলেও সে তা রেজিস্ট্রি করে না দিয়ে এখন পালিয়ে বেড়াচ্ছে। জয়দেব ধুরন্ধর প্রকৃতির লোক। তার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ আছে এলাকায়। ’

এই পাতার আরো খবর
up-arrow