Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:২১
শেরপুর এটিএম বুথ সমস্যা, ভোগান্তিতে গ্রাহকরা
শেরপুর প্রতিনিধি

শেরপুর জেলা শহরের কার্ড দিয়ে টাকা তোলার জন্য ৪টি ব্যাংকের এটিএম বুথ রয়েছে। বুথগুলোর মধ্যে কোনোটা নষ্ট কোনটায় টাকা নেই।

আবার কোনোটা চালু থাকলেও অন্য ব্যাংেকের কার্ড ঢুকছে না। বৃহস্পতিবার থেকে ঈদের লম্বা ছুটির কারণে শুক্রবার থেকেই ওইসব এটিএম বুথে টাকা তোলার হিড়িক পড়ে। ২দিন ধরে যমুনা ব্যাংক ও ব্র্যাক ব্যাংকের এটিএম বুথ বন্ধ থাকায় ওইসব ব্যাংকের গ্রাহকদের ছুটতে হচ্ছে অন্য ব্যাংকের বুথের দিকে। কিন্তু ডাচবাংলা ফাস্ট ট্র্যাক অফিসের বুথও দুই দিন ধরে অন্য ব্যাংকের কার্ড নিচ্ছে না বলে জানান বিভিন্ন ব্যাংকের গ্রাহকরা। কেবল মাত্র ইসলামী ব্যাংকের বুথ সচল থাকলেও ওই ব্যাংকের নির্ধারিত টাকা যে কোন সময় শেষ হয়ে গেলে বেকায়দায় পড়বেন গ্রাহকরা। ইসলামী ব্যাংকের বুথটিও মাঝে মধ্যে সমস্যা করছে। ঢাকা থেকে ঈদের ছুটিতে আসা প্রকৌশলী আবুল হোসেন গত  ১০ সেপ্টেম্বর বেলা ১২ টায় যমুনা ব্যাংকের বুথ থেকে টাকা তুলতে গিয়ে দেখেন বুথ বন্ধ। অপরদিকে শহরের সিংপাড়া মহল্লার আহাম্মদ উল্লাহ ব্র্যাক ব্যাংকের বুথ বিকল হওয়ায় ইসলামী ব্যাংকের বুথে আসছিলেন টাকা তুলতে কিন্তু  ইসলামি ব্যাংকের বুথ অন্য ব্যাংকের কার্ড নিচ্ছে না। তাই টাকা তুলতে না পেরে নগদ টাকার সমস্যায় পড়েছেন বলে জানিয়েছেন। ব্যাংক এশিয়ার এটিএম কার্ডধারী সুমন ডাচবাংলা ব্যাংকের ফাস্ট ট্র্যাক-এর বুথে টাকা তুলতে গিয়ে টাকা না তুলতে পেয়ে ফিরে আসেন। এদিকে বুথ বিকলের বিষয়ে ব্র্যাক ব্যাংকের কোনো কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ সম্ভব  না হলেও শহরের খরমপুরস্থ বুথের সিকিউরিটিরা জানান, দুই দিন থেকে বুথ নষ্ট, কবে ঠিক হবে বলতে পারে না। তবে অসংখ্য মানুষ টাকা তুলতে এসে ফিরে যাচ্ছে বলে জানান তারা। এদিকে যমুনা ব্যাংকের ম্যানেজার আবুল কালাম আজাদ মোবাইলে সাংবাদিকদের জানান, আমার বুথ নষ্ট বা বিকল নয়। বৃহস্পতিবার নগদ ৩০ লাখ টাকা লোড করলেও শুক্রবারের মধ্যেই তা শেষ হয়ে যায়। তাই বুথ বন্ধ রাখা হয়েছে।

 ব্যাংক খুললে তাতে টাকা লোড করা হবে। এদিকে ইসলামী ব্যাংকের  একটি সূত্রে জানিয়েছে, টাকা শেষ হয়ে গেলে সম্ভবত ব্যাংক খোলার আগে আর টাকা দেওয়া সম্ভব হনে না।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow