Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৩৮
গৌরনদীর ভাতাপ্রাপ্ত পাঁচজনের পক্ষে-বিপক্ষে সাক্ষ্য
ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা যাচাই
নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বরিশালের গৌরনদীতে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই সংক্রান্ত সাক্ষ্যগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে রবিবার উপজেলা প্রশাসন গঠিত তিন সদস্যের কমিটির সামনে পাঁচ অভিযুক্তের পক্ষে-বিপক্ষে সাক্ষ্য দেন ছয়জন মুক্তিযোদ্ধা।

সাক্ষীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধকালীন সাব সেক্টরের বৃহত্তর বরিশাল অঞ্চলের সেকেন্ড ইন কমান্ড এমএ হক বীর বিক্রমও ছিলেন। অভিযুক্তরা হলেন— শাহাজিরা গ্রামের আব্দুর রহমান খান, মোবারেক হোসেন হাওলাদার, সাকোকাঠী গ্রামের আব্দুল খালেক মোল্লা, তাজেম আলী চৌকিদার ও মোতালেব হোসেন। আব্দুর রহমান খানের দুই ছেলে নাসির খান পুলিশে এবং মাইনুদ্দিন শিক্ষা বিভাগে মুক্তিযোদ্ধা কোটায় চাকরি পেয়েছেন। অভিযুক্তরা মুক্তিযোদ্ধা ভাতাপ্রাপ্তের তালিকায় তাদের নাম রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। প্রভাব বিস্তারসহ তদন্ত কমিটির সদস্যদের ম্যানেজ করার চেষ্টা চালাচ্ছেন বলেও অভিযোগ উঠেছে। যদিও তদন্ত কমিটি এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। কমিটির সদস্য উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার মনিরুল হক মনির বলেন, অভিযুক্ত পাঁচজনের পক্ষে-বিপক্ষে সাক্ষ্য পড়েছে। এতে জটিল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ফলে কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া যায়নি। সত্যতা যাচাইয়ে আরও তদন্ত করবেন তারা। তদন্ত শেষে জেলা প্রশাসককে প্রতিবেদন পাঠানো হবে। জানা যায়, আব্দুর রহমান, মোবারেক হোসেন, আব্দুল খালেক, তাজেম আলী ও মোতালেব হোসেনকে মুক্তিযোদ্ধা গেজেট থেকে বাতিল চেয়ে এমএ হক বীর বিক্রমসহ গৌরনদীর কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর কাছে আবেদন করেন। তারা অভিযোগ করেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় মুক্তিযোদ্ধাদের কোনো সাহায্য সহানুভূতি না দেখিয়ে এবং যুদ্ধে অংশ না নিয়েও স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের লোক এবং রাজাকারের পাঁচ দোসর মুক্তিযোদ্ধার গেজেটভুক্ত হয়ে সব সুযোগ সুবিধা ভোগ করছেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow