Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, সোমবার, ২১ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩৮
মেহেরপুরে ভেঙে ফেলা হলো সেই নির্মাণাধীন বিদ্যালয়ের বিল্ডিং
মেহেরপুর প্রতিনিধি

নির্মাণাধীন বিদ্যালয়ের সিঁড়ি নির্মাণকাজে পর্যাপ্ত রড ও সিমেন্ট না দিয়ে ঢালাইয়ের কারণে ধসে পড়ায় ভেঙে ফেলা হচ্ছে মেহেরপুরের নওয়াপাড়া নবীনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সেই বিল্ডিং। মেহেরপুর নির্বাহী প্রকৌশলী আজিম উদ্দীন সর্দারের উপস্থিতিতে গতকাল বেলা ১২টা থেকে ভাঙা শুরু হয়েছে নির্মাণাধীন এই বিল্ডিংটি।

এ সময় গাংনী উপজেলা প্রকৌশলী মাহবুবুল হকসহ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন। জানা গেছে, চলতি বছরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল বিভাগ (এলজিইডি) তত্ত্বাবধানে তামান্না এন্টার প্রাইজ নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ৬৩ লাখ ৫২ হাজার টাকা ব্যয়ে গাংনী নওয়াপাড়া নবীনপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ কাজ শুরু করে। এলাকাবাসী, অভিভাবক, স্কুল পরিচালনা কমিটি ও প্রকৌশলীর অভিযোগ, রড ও সিমেন্টের ব্যবহার ছাড়াই চরম দুর্নীতির মাধ্যমে স্কুলটির নির্মাণ কাজ চলে আসছিল। স্থানীয়রা স্কুলটির সিঁড়ি ঢালাইয়ের সময় দরপত্র অনুযায়ী রড ও সিমেন্ট ব্যবহারের অনুরোধ করেছিল। কিন্তু সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার রড ও সিমেন্ট ছাড়াই গোপনে সিঁড়ি ঢালাইয়ের কাজ শেষ করে।   এর ১৫ দিনের মাথায় ৭ জানুয়ারি দুপুরে ধসে পড়ে স্কুলটির নির্মাণাধীন সিঁড়ি। এ নিয়ে ফুসে ওঠে এলাকাবাসী ও অভিভাবকরা। তাদের আন্দোলনের মুখে এলজিইডি কর্তৃপক্ষ নির্মাণাধীন বিদ্যালয়ের রড, সিমেন্টসহ বিভিন্ন উপকরণ পরীক্ষার জন্য বুয়েটে পাঠায়। রবিবার বুয়েট থেকে বিল্ডিংটি ভেঙে নতুন বিল্ডিং নির্মাণের জন্য পত্র আসলে বিল্ডিংটি ভেঙে ফেলার কাজ শুরু হয়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তামান্না ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের নামে স্কুলটির নির্মাণ কাজ করছেন মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল খালেক।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow