Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩২
‘আমতলীতে জরিপের নামে হয়রানি’
আমতলী প্রতিনিধি

বরগুনার আমতলী-কলাপাড়া মহাসড়কের কল্যাণপুর বাস স্ট্যান্ডে ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি জরিপের কর্মকর্তাদের অনিয়ম ও ঘুষ দুর্নীতির বিরুদ্ধে হাজার হাজার গ্রামবাসী মানববন্ধন করেছে। গতকাল  বেলা ১১টায় কল্যাণপুর স্ট্যান্ডে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন চলাকালে আলহাজ আবদুস সালাম হাওলাদারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন আবদুর রাজ্জাক, আবদুল হালিম, আবদুল মালেক হাওলাদার ও আলতাফ হোসেন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন ডিজিটাল পদ্ধতির ভূমি জরিপে আমতলী সদর ইউনিয়নে নীলগঞ্জ, উত্তর টিয়াখালী ও পুজাখোলা মৌজায় কর্মরত সার্ভেয়াররা জরিপের নামে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করছে। পুজাখোলা গ্রামের শরীফ আলী খানের পুত্র বাদশা খান জানান পুজাখোলা মৌজার জেএল নং ৩৬ , ৩৫১৪ নং খতিয়ানে ৩ একর ৩০ শতাংশ জমি আমার পৈতৃক সম্পত্তি। কিন্তু জরিপ কাজে নিয়োজিত সার্ভেয়ার ওয়ালি উল্লাহ ও রাসেল একই গ্রামের ইউনুস আলী গংদের নামে জমি রেকর্ড করে দিয়েছে। একই অভিযোগ করেন সেকান্দারখালী গ্রামের আবদুল জব্বার হাওলাদার। তিনি অভিযোগ করেন নীলগঞ্জ মৌজার ২৫২ খতিয়ানের ৩ একর ৩৩ শতাংশ জমি রয়েছে। এ জমি আমার ওয়ারিশদের মধ্যে রেকর্ড না করে অন্য লোকদের নামে রেকর্ড করেছে। এ ভুল সংশোধন করতে গেলে সার্ভেয়ার ওয়ালি উল্লাহ মোটা অঙ্কের ঘুষ দাবি করেছেন। পুজাখোলা গ্রামের আবদুর রাজ্জাক বলেন, সার্ভেয়ার ওয়ালি উল্লাহ পরচা সংশোধনের কথা বলে ৪ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন। একই গ্রামের জাকির হোসেন মোল্লা বলেন, রেকর্ড করার কথা বলে সার্ভেয়ার ২ হাজার টাকা ঘুষ নিয়েছেন। মো. আলতাফ হোসেন বলেন, বর্তমান জরিপকারীরা জরিপ আইন মানছেন না। তাদের ইচ্ছামতো নকশা তৈরি করে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি করে অর্থ আদায় করছেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow