Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:২৫
সাগরে দস্যুতা বাড়ছে জেলেপল্লীতে আতঙ্ক
কক্সবাজার প্রতিনিধি

কক্সবাজার সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরে সম্প্রতি বেড়ে গেছে দস্যুতা। এতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয় বিভিন্ন জেলেপল্লীতে।

এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণের উপায় খুঁজছেন জেলেরা। শাহপরীর দ্বীপ বোটমালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কাশেম জানান, হঠাৎ দস্যুর উৎপাত দেখা দেওয়ায় জেলে সম্প্রদায়ের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। দস্যুতা বন্ধে সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন তিনি। বঙ্গোপসাগরে মৎস্য আহরণকালে টেকনাফ শাহপরীর দ্বীপের পাঁচ ফিশিং ট্রলারে ডাকাতি হয়েছে। এ ঘটনায় একটি ট্রলারসহ তিন জেলে এখনো নিখোঁজ রয়েছেন। গত রবিবার ওই ট্রলারগুলো সাগরে মাছ শিকারে গিয়েছিল।

ডাকাতির কবলে পড়া ট্রলার মালিকরা জানান, মঙ্গলবার দিবাগত গভীর রাতে শাহপরীর দ্বীপের পশ্চিম পাশে বঙ্গোপসাগরের ১২ বাইন এলাকায় সুলতান আহাম্মদ মাঝির দুটি এবং জাফর আলম, হোসন ও রহিম উল্লাহর তিনটি ট্রলারে মাছ শিকার করছিল। এ সময় একদল জলদস্যু হানা দিয়ে সুলতান আহাম্মদ মাঝির ট্রলারে উঠে ১১ মাঝি-মাল্লাকে সাগরে ফেলে দিয়ে ট্রলারটি নিয়ে। বাকি চারটি ট্রলারে হামলা ও লুটপাট চালায় তারা।

ডাকাতির খবর পেয়ে মালিকরা অন্য কয়েকটি ট্রলার পাঠিয়ে আট জেলেকে উদ্ধার করলেও শাহপরীর দ্বীপ বাজার পাড়ার আমিন উল্লাহ, উত্তর পাড়ার মো. নূর ও ডেইল পাড়ার মো. কাশেম এখনো নিখোঁজ।

নিখোঁজ ট্রলারের মালিক জাফর আলম জানান, বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে। সাগরে জলদস্যুর উৎপাত বেড়েছে। জেলেদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। এখন আমাদের কি উপায় হবে জানি না। শাহপরীর দ্বীপ বোটমালিক সমিতির কাশেম জানান, সাগরে মাছ শিকারে গিয়ে পাঁচটি ট্রলার ডাকাতের কবলে পড়ার খবর পাওয়া গেছে। একটি ট্রলার ও তিন জেলে নিখোঁজ রয়েছেন। বিষয়টি স্থানীয় কোস্টগার্ড ও বিজিবিকে মোখিকভাবে জানানো হয়েছে। থানায় অভিযোগ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow