Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৪৮
লালমনিরহাটে গবাদিপশু মরছে অজানা রোগে
লালমনিরহাট প্রতিনিধি

লালমনিরহাটে কালীগঞ্জে একটি গ্রামে পাঁচ দিনের ব্যবধানে অজানা রোগে মারা গেছে ৩৩টি গরু-ছাগল। ফলে দুশ্চিন্তায় দিন কাটাচ্ছেন উপজেলার দক্ষিণ দলগ্রামের পশুরাম পাড়ার কৃষক।

অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু এড়াতে অনেকে গবাদি পশু বিক্রি করার পাশাপাশি আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে পাঠাচ্ছেন।

জানা যায়, গত শনিবার থেকে হঠাৎ মারা যেতে শুরু করে গবাদি পশু। আক্রান্ত গরু-ছাগলের প্রথমে পিছনের পা কাঁপতে থাকে। এরপর পেট ফুলে মাটিতে পড়ে গোটা শরীর কাঁপা শুরু হয়। এর আনুমানিক দেড় ঘণ্টা পর আক্রান্ত গরুটি মারা যায়। আর একই অনুষর্গ দেখা দেওয়ার ১০-১১ মিনিট পরেই মৃত্যু হয় ছাগলের। এভাবে বুধবার পর্যন্ত ওই গ্রামের ১২ কৃষকের ৩৩টি গবাদি পশুর মৃত্যু হয়েছে। কৃষকরা মৃত গবাদি পশু মাটিতে পুঁতে রেখেছেন। ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, পশুরাম পাড়া এলাকায় ২০১৫ সালের এই সময়ে (মাঘ-ফাল্গুন মাস) একইভাবে গরু-ছাগল মারা যাওয়া শুরু হয়েছিল।

অজানা এ রোগে ২০১৫ সালে সাতটি গরু পাঁচটি ছাগল এবং ২০১৬ সালে ছয়টি গরু ও নয়টি ছাগল মারা যায়। লালমনিরহাট প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. এএসএম নাসিরুদ্দিন খাঁন জানান,  ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। প্রাথমিকভাবে এটিকে ফুড পয়জনিং (খাদ্যে বিষক্রিয়া) বলে মনে হচ্ছে। আক্রান্ত গরুর নমুনা ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট এলে বোঝা যাবে কি কারণে এমনটি হচ্ছে। কালীগঞ্জ প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. নূরুল ইসলাম বলেন, ওই এলাকায় কিছু গরু ছাগল মারা গেছে। বিষয়টি আমরা সার্বক্ষণিক দেখভাল করছি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow